১০:৫৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

কুলিয়ারচরে জায়গা নিয়ে বিরোধের হামলায় আহত ৫ বাড়ি- ঘর ভাংচুর, লুটপাট

প্রতিনিধির নাম
কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার আগরপুর পশ্চিম পাড়া গ্রামে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৫ জন আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে মোঃ জালাল মিয়া নামে একজন গুরুতর আহত হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তী রয়েছে। জানা যায়, গত ১০ বছর ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলছে । থানা সহ এলাকায় একাধিক শালিস- দরবারে ভুক্তভোগী পরিবার রায় পেলেও মানতে নারাজ প্রতিপক্ষ । আরো আর/ সিএস মূলে ৫৫ শতাংশ জমির মালিক গাবলু তালুকদার।
গাবলু তালুকদারের ছেলের পালক পুত্র সোনা মিয়ার ছেলে গোলাপ ও বাচ্চুর সাথে জায়গা নিয়ে দ্বন্দ চলে আসছে গাবলু তালুকদারের পুত্র মৃত জমির উদ্দিনের ছেলে আল আমিনদের।
আল আমিন জানান, সোনা মিয়ার ছেলে গোলাপ ও বাচ্চু ক্রয় মূলে ২৭ শতাংশের মালিক হয়েও জোর পূর্বক আমাদের কাছ থেকে ভোগ দখল করে যাচ্ছে ৪২ শতাংশ জমি। এ ঘটনায় একাধিকবার থানা ও এলাকায় শালিশ- দরবার করেছি আমরা এবং স্থানীয়ভাবে রায় পাই আমরা। ঘটনার জের ধরে গত ১০ ফেব্রয়ারী বৃহস্পতিবার দুপুরে গোলাপ ও বাচ্চুর লোকজন আমাদের ২টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এতে ৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়। আবার ১১ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে আমাকে ও আমার পরিবারের অনান্য সদস্যদের মারধর করে। আতাউর, মজনু, নয়ন, সাজন, কামাল, রোমান, শাহ্ আলম সহ অনান্যরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা করে যখম করে। এ ঘটনায় আমার বড় ভাই জালাল মিয়া (৪৫) গুরুতর আহত হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত অনান্যরা হল, আয়শা বেগম (৩৫), মাসেদা বেগম (৩৫), সাদিয়া (২৫)।
ভুক্তভোগী আয়েশা বলেন ২বছর আগে আমাদেরকে উচ্ছেদ করার জন্য হামলা করে আমাদের প্রতিপক্ষ হামলায় আমার ডানকান কেটে ফেলে শরীরের বিভিন্ন অংশে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করে আমি বিচার পাইনি আমরা এখন পরিবার নিয়ে ভয়ে দিন পার করছি। এ ঘটনার পর থেকে আমরা পরিবারের অনান্য সদস্যরা কখনো আত্নীয় স্বজনের বাড়িতে কখনো আবার খোলা আকাশের নিচে রাত্রি যাপন করছি।
ঘটনার বিষয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের কাছে জানতে চাইলে আতাউর বলেন, এটা সাংবাদিকদের কোন বিষয় না। আল- আমিনেরা জায়গাটিতে জোর পূর্বক ভাবে থাকছে। আল আমিনরা প্রথমে বাচ্চু ও গোলাপের বাড়ি- ঘর ভাংচুর করে, পরে বাচ্চু ও গোলাপেরা আল আমিনদের বাড়ি- ঘর ভাংচুর করে।
এ ব্যাপারে কুলিয়ারচর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ গোলাম মোস্তফা বলেন এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাইনি, তবে খবর পেয়ে আমরা সেখানে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগ পেলে অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।
ট্যাগস :
আপডেট : ০৬:০৬:২৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২
১৩৪ বার পড়া হয়েছে

কুলিয়ারচরে জায়গা নিয়ে বিরোধের হামলায় আহত ৫ বাড়ি- ঘর ভাংচুর, লুটপাট

আপডেট : ০৬:০৬:২৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২
কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার আগরপুর পশ্চিম পাড়া গ্রামে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ৫ জন আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে মোঃ জালাল মিয়া নামে একজন গুরুতর আহত হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তী রয়েছে। জানা যায়, গত ১০ বছর ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলছে । থানা সহ এলাকায় একাধিক শালিস- দরবারে ভুক্তভোগী পরিবার রায় পেলেও মানতে নারাজ প্রতিপক্ষ । আরো আর/ সিএস মূলে ৫৫ শতাংশ জমির মালিক গাবলু তালুকদার।
গাবলু তালুকদারের ছেলের পালক পুত্র সোনা মিয়ার ছেলে গোলাপ ও বাচ্চুর সাথে জায়গা নিয়ে দ্বন্দ চলে আসছে গাবলু তালুকদারের পুত্র মৃত জমির উদ্দিনের ছেলে আল আমিনদের।
আল আমিন জানান, সোনা মিয়ার ছেলে গোলাপ ও বাচ্চু ক্রয় মূলে ২৭ শতাংশের মালিক হয়েও জোর পূর্বক আমাদের কাছ থেকে ভোগ দখল করে যাচ্ছে ৪২ শতাংশ জমি। এ ঘটনায় একাধিকবার থানা ও এলাকায় শালিশ- দরবার করেছি আমরা এবং স্থানীয়ভাবে রায় পাই আমরা। ঘটনার জের ধরে গত ১০ ফেব্রয়ারী বৃহস্পতিবার দুপুরে গোলাপ ও বাচ্চুর লোকজন আমাদের ২টি ঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। এতে ৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়। আবার ১১ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে আমাকে ও আমার পরিবারের অনান্য সদস্যদের মারধর করে। আতাউর, মজনু, নয়ন, সাজন, কামাল, রোমান, শাহ্ আলম সহ অনান্যরা দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা করে যখম করে। এ ঘটনায় আমার বড় ভাই জালাল মিয়া (৪৫) গুরুতর আহত হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আহত অনান্যরা হল, আয়শা বেগম (৩৫), মাসেদা বেগম (৩৫), সাদিয়া (২৫)।
ভুক্তভোগী আয়েশা বলেন ২বছর আগে আমাদেরকে উচ্ছেদ করার জন্য হামলা করে আমাদের প্রতিপক্ষ হামলায় আমার ডানকান কেটে ফেলে শরীরের বিভিন্ন অংশে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করে আমি বিচার পাইনি আমরা এখন পরিবার নিয়ে ভয়ে দিন পার করছি। এ ঘটনার পর থেকে আমরা পরিবারের অনান্য সদস্যরা কখনো আত্নীয় স্বজনের বাড়িতে কখনো আবার খোলা আকাশের নিচে রাত্রি যাপন করছি।
ঘটনার বিষয়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের কাছে জানতে চাইলে আতাউর বলেন, এটা সাংবাদিকদের কোন বিষয় না। আল- আমিনেরা জায়গাটিতে জোর পূর্বক ভাবে থাকছে। আল আমিনরা প্রথমে বাচ্চু ও গোলাপের বাড়ি- ঘর ভাংচুর করে, পরে বাচ্চু ও গোলাপেরা আল আমিনদের বাড়ি- ঘর ভাংচুর করে।
এ ব্যাপারে কুলিয়ারচর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ গোলাম মোস্তফা বলেন এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ পাইনি, তবে খবর পেয়ে আমরা সেখানে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগ পেলে অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।