০৬:২৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

ঝিনাইদহে প্রকাশ্যে যুবলীগ নেতাকে  কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা

প্রতিনিধির নাম
ঝিনাইদহে  প্রকাশ্য দিবালোকে যুবলীগ নেতা আবন (৪২) কে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল রোববার (১৩ মার্চ) দুপুর আড়াইটায় ঝিনাইদহ পৌর এলাকার খাজুরা পশ্চিম পাড়ার বটতলায়। ৮ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি নিহত আবন খাজুরা গ্রামের সালামত মন্ডলের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, আবন দুপুর আড়াইটার দিকে তার নিজ বাড়ি থেকে ঐষধ কেনার জন্য খাজুরা বটতলা এলাকার মিঠুর ফার্র্মেসীতে যান। এ সময় আগে থেকে সেখানে ওৎ পেতে থাকা একই এলাকার মঙ্গল, জাহিদ ও ছোটনসহ বেশ ক’জন তার উপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে  ও গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী জানায় ২০২০ সালের ১০ জুন জাহিদের নেতৃত্বে বিএনপি থেকে আ’লীগে যোগদানকে কেন্দ্র করে রাতে আবন সমর্থিত গ্রæপের হাতে একই গ্রামের গোলাম বারীর ছেলে ফারুক (৩৫) আহত হন। পরদিন সকালে তিনি ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। ফারুক হত্যার জের ধরে প্রতিপক্ষরা এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে এলাকাবাসীর ধারনা করেছেন। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ঝিনাইদহ আড়াইশো বেড হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোঃ সোহেল রানা জানান, তারা এখন ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে এবং জড়িতদের সনাক্ত করে আটকের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি আরো জানান ফারুক হত্যার জের ধরে এই হত্যাকান্ড ঘটানো হতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে।
ট্যাগস :
আপডেট : ০৪:৫৫:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৩ মার্চ ২০২২
১৩৪ বার পড়া হয়েছে

ঝিনাইদহে প্রকাশ্যে যুবলীগ নেতাকে  কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা

আপডেট : ০৪:৫৫:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৩ মার্চ ২০২২
ঝিনাইদহে  প্রকাশ্য দিবালোকে যুবলীগ নেতা আবন (৪২) কে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল রোববার (১৩ মার্চ) দুপুর আড়াইটায় ঝিনাইদহ পৌর এলাকার খাজুরা পশ্চিম পাড়ার বটতলায়। ৮ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাবেক সভাপতি নিহত আবন খাজুরা গ্রামের সালামত মন্ডলের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, আবন দুপুর আড়াইটার দিকে তার নিজ বাড়ি থেকে ঐষধ কেনার জন্য খাজুরা বটতলা এলাকার মিঠুর ফার্র্মেসীতে যান। এ সময় আগে থেকে সেখানে ওৎ পেতে থাকা একই এলাকার মঙ্গল, জাহিদ ও ছোটনসহ বেশ ক’জন তার উপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে  ও গলা কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী জানায় ২০২০ সালের ১০ জুন জাহিদের নেতৃত্বে বিএনপি থেকে আ’লীগে যোগদানকে কেন্দ্র করে রাতে আবন সমর্থিত গ্রæপের হাতে একই গ্রামের গোলাম বারীর ছেলে ফারুক (৩৫) আহত হন। পরদিন সকালে তিনি ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। ফারুক হত্যার জের ধরে প্রতিপক্ষরা এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে এলাকাবাসীর ধারনা করেছেন। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ঝিনাইদহ আড়াইশো বেড হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোঃ সোহেল রানা জানান, তারা এখন ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে এবং জড়িতদের সনাক্ত করে আটকের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছেন। তিনি আরো জানান ফারুক হত্যার জের ধরে এই হত্যাকান্ড ঘটানো হতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে করা হচ্ছে।