০৯:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

দুর্গাপুরে চালককে অজ্ঞান করে অটো ছিনতাই

প্রতিনিধির নাম
নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুরে মোঃ আলামিন (৩০) নামের এক অটো চালককে বিস্কুট খাওইয়ে অজ্ঞান করে অটো ও নগদ টাকা ছিনতাই এর ঘটনা ঘটেছে।  সোমবার দুপুরের দিকে দুর্গাপুর পৌর শহরের ভাঙ্গা ব্রীজ নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অটোচালক মোঃ আলামিন পার্শ্ববর্তী কলমাকান্দা উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের পূর্ব নলছাপড়া গ্রামের বাসিন্দা।
আলামিন মিয়ার পরিবার সূত্রে জানা যায়, কলমাকান্দা থেকে দুইজন যাত্রী নিয়ে দুর্গাপুর যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। যাওয়ার পথে পালপাড়া নামক এলাকায় দুইজন এক দোকান থেকে বিস্কুট কিনে। তারপর দুর্গাপুর- কলমাকান্দা সড়কের চন্ডিঘর ইউনিয়নের চন্ডিঘর বাজার পার হয়ে বিভিন্ন কৌশলে তাকে বিস্কুট খাওয়ানো হয়। কিছুখনের মধ্যেই অজ্ঞান হয়ে যায় আলামিন। এরপর পৌরশহরের ভাঙ্গা ব্রীজ নামক জায়গায় পৌঁছাতেই নিরব ফাঁকা জায়গা পেয়ে আলামিন কে রাস্তার পাশে অজ্ঞান অবস্থায় ফেলে রেখে অটো ও টাকা নিয়ে চলে যায় তারা।
মোঃ আলামিন মিয়ার বড় ভাই মোঃ তাজুল মিয়া বলেন, আলামিনের ফোন থেকে কল আসে জানায় একজন অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে। তার পাশে ফোনটা পাওয়া যায়। এরপর আমরা দ্রুত দুর্গাপুরে গিয়ে দেখতে পায় আলামিন। এরপর সেখান থেকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। এবং চিকিৎসা চালাচ্ছি। ঘটনার প্রায় ৫-৬ ঘন্টা পর ২বার জ্ঞান ফিরলেও আবারও অজ্ঞান হয়ে আছে।
ট্যাগস :
আপডেট : ০৩:২৫:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২
২৬৮ বার পড়া হয়েছে

দুর্গাপুরে চালককে অজ্ঞান করে অটো ছিনতাই

আপডেট : ০৩:২৫:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২
নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুরে মোঃ আলামিন (৩০) নামের এক অটো চালককে বিস্কুট খাওইয়ে অজ্ঞান করে অটো ও নগদ টাকা ছিনতাই এর ঘটনা ঘটেছে।  সোমবার দুপুরের দিকে দুর্গাপুর পৌর শহরের ভাঙ্গা ব্রীজ নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অটোচালক মোঃ আলামিন পার্শ্ববর্তী কলমাকান্দা উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের পূর্ব নলছাপড়া গ্রামের বাসিন্দা।
আলামিন মিয়ার পরিবার সূত্রে জানা যায়, কলমাকান্দা থেকে দুইজন যাত্রী নিয়ে দুর্গাপুর যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। যাওয়ার পথে পালপাড়া নামক এলাকায় দুইজন এক দোকান থেকে বিস্কুট কিনে। তারপর দুর্গাপুর- কলমাকান্দা সড়কের চন্ডিঘর ইউনিয়নের চন্ডিঘর বাজার পার হয়ে বিভিন্ন কৌশলে তাকে বিস্কুট খাওয়ানো হয়। কিছুখনের মধ্যেই অজ্ঞান হয়ে যায় আলামিন। এরপর পৌরশহরের ভাঙ্গা ব্রীজ নামক জায়গায় পৌঁছাতেই নিরব ফাঁকা জায়গা পেয়ে আলামিন কে রাস্তার পাশে অজ্ঞান অবস্থায় ফেলে রেখে অটো ও টাকা নিয়ে চলে যায় তারা।
মোঃ আলামিন মিয়ার বড় ভাই মোঃ তাজুল মিয়া বলেন, আলামিনের ফোন থেকে কল আসে জানায় একজন অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে। তার পাশে ফোনটা পাওয়া যায়। এরপর আমরা দ্রুত দুর্গাপুরে গিয়ে দেখতে পায় আলামিন। এরপর সেখান থেকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। এবং চিকিৎসা চালাচ্ছি। ঘটনার প্রায় ৫-৬ ঘন্টা পর ২বার জ্ঞান ফিরলেও আবারও অজ্ঞান হয়ে আছে।