০৬:৪০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

নরসিংদীতে ঘরে ডেকে নিয়ে স্ত্রীকে হত্যা

মো. শফিকুল ইসলাম, নরসিংদী
নরসিংদী সদর উপজেলার হাজীপুরে ঘরে  ডেকে নিয়ে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সাবেক স্বামী। হত্যার পর ঘরের ভিতর লাশ ফেলে পালিয়ে যায় পাষণ্ড স্বামী।
শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌঁনে ৯ টার দিকে সদর উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রুনা বেগম (৪২) পৌর শহরের বেপারীপাড়া এলাকার করিম মিয়ার মেয়ে বলে জানা যায়।স্থানীয় ও নিহতের স্বজনরা জানান, শনিবার সন্ধ্যায় নিহত রুনার সাবেক স্বামী রৌশন মিয়া রুনাকে হাজীপুর চকপাড়া এলাকার তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে দুই জনের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে তার স্বামী ঘরের দরজা বন্ধ করে রুনাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রথমে কুপিয়ে ও পরে বটি দিয়ে জবাই করে হত্যা করে। ওই সময় ঘরের মধ্যে হৈচৈ ও চিৎকারের শব্দ শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে রৌশন মিয়া সবার সামনে দিয়েই দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে রুনাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের মা শাহারা বেগম বলেন, ঘাতক রৌশন মিয়া ভ্যানচালক। সে মাদকাসক্ত। টাকার জন্য প্রায়ই রুনাকে মারপিট করতো।
গত দুই বছর আগে রৌশনকে তালাক দেয় রুনা। সে রুনাকে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য নানা রকম অপচেষ্টা চালায়। কিন্তু রুনা রাজি হয়নি। সে তার স্বামীকে ছেড়ে সন্তানদের নিয়ে বেপারীপাড়া এলাকায় বসবাস করতো।প্রতিবেশী শাজাহান মিয়া জানান, ঘরের মধ্যে হৈচৈ ও চিৎকারের শব্দ শুনে আমরা এগিয়ে যাই। দরজা ধাক্কা দিলেও তারা দরজা খুলেনি। কিছুক্ষণ পর দরজা খুলে রৌশন মিয়া দৌড়ে পালিয়ে যায়। রক্ত দেখে আমরা হতবাগ হয়ে যাই। পরে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহামুদুল কবির আরিফ বলেন, হাসপাতালে আনার পর আমরা রুনা বেগমকে মৃত অবস্থায় পাই। তার গলার পেছন দিকে কাটা অবস্থায় পাওয়া যায়। এছাড়াও পেছন দিকে কয়েক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভির আহাম্মেদ বলেন, পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। অভিযুক্ত স্বামীকে গ্রেপ্তারের অভিযান চালানো হচ্ছে।
ট্যাগস :
আপডেট : ০৩:০৭:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
১০৪ বার পড়া হয়েছে

নরসিংদীতে ঘরে ডেকে নিয়ে স্ত্রীকে হত্যা

আপডেট : ০৩:০৭:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
নরসিংদী সদর উপজেলার হাজীপুরে ঘরে  ডেকে নিয়ে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে সাবেক স্বামী। হত্যার পর ঘরের ভিতর লাশ ফেলে পালিয়ে যায় পাষণ্ড স্বামী।
শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌঁনে ৯ টার দিকে সদর উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত রুনা বেগম (৪২) পৌর শহরের বেপারীপাড়া এলাকার করিম মিয়ার মেয়ে বলে জানা যায়।স্থানীয় ও নিহতের স্বজনরা জানান, শনিবার সন্ধ্যায় নিহত রুনার সাবেক স্বামী রৌশন মিয়া রুনাকে হাজীপুর চকপাড়া এলাকার তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে দুই জনের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে তার স্বামী ঘরের দরজা বন্ধ করে রুনাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রথমে কুপিয়ে ও পরে বটি দিয়ে জবাই করে হত্যা করে। ওই সময় ঘরের মধ্যে হৈচৈ ও চিৎকারের শব্দ শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে রৌশন মিয়া সবার সামনে দিয়েই দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে রুনাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের মা শাহারা বেগম বলেন, ঘাতক রৌশন মিয়া ভ্যানচালক। সে মাদকাসক্ত। টাকার জন্য প্রায়ই রুনাকে মারপিট করতো।
গত দুই বছর আগে রৌশনকে তালাক দেয় রুনা। সে রুনাকে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য নানা রকম অপচেষ্টা চালায়। কিন্তু রুনা রাজি হয়নি। সে তার স্বামীকে ছেড়ে সন্তানদের নিয়ে বেপারীপাড়া এলাকায় বসবাস করতো।প্রতিবেশী শাজাহান মিয়া জানান, ঘরের মধ্যে হৈচৈ ও চিৎকারের শব্দ শুনে আমরা এগিয়ে যাই। দরজা ধাক্কা দিলেও তারা দরজা খুলেনি। কিছুক্ষণ পর দরজা খুলে রৌশন মিয়া দৌড়ে পালিয়ে যায়। রক্ত দেখে আমরা হতবাগ হয়ে যাই। পরে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহামুদুল কবির আরিফ বলেন, হাসপাতালে আনার পর আমরা রুনা বেগমকে মৃত অবস্থায় পাই। তার গলার পেছন দিকে কাটা অবস্থায় পাওয়া যায়। এছাড়াও পেছন দিকে কয়েক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।
নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভির আহাম্মেদ বলেন, পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। অভিযুক্ত স্বামীকে গ্রেপ্তারের অভিযান চালানো হচ্ছে।