০৮:৫৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বাঁশখালীতে জেলেদের কম্বল বিতরণ

প্রতিনিধির নাম

তীব্র কুয়াশা, কনকনে হিমেল হাওয়া সব মিলিয়ে অসহায় দরিদ্র প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কষ্টের সীমা থাকে না। এসব দরিদ্র প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রায় আরো বিরূপ প্রভাব ফেলে। কর্মসংস্থান বন্ধ সহ নানা অসুখ-বিসুখ মিলিয়ে এই খেটে খাওয়া মানুষের অসহায়ত্বকে প্রকট করে তোলে। আর সবচেয়ে বড় কষ্টের ব্যাপার তখন হয়, যখন এই হাড়কাপানো শীতেও  তাদের শীত নিবারণের জন্য পর্যাপ্ত শীত বস্ত্র   থাকে না।   এসব হতদরিদ্র শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে    মানবতার সংগঠন নিষ্ঠা ফাউন্ডেশন।

রুক্ষ শীতের তীব্রতাতে হিমশীতল অনাদরে, মানবতাকে জড়িয়ে দেই উষ্ণতার চাদরে” এই স্লোগান কে সামনে রেখে  নিষ্ঠার উদ্যোগে বাঁশখালীস্থ বানীগ্রামে পালপাড়ায় জেলেদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

বুধবার  (২  ফেব্রুয়ারি )বিকালে  ৩০ জন  জেলে পরিবারের সদস্যদের হাতে  শীত বস্ত্র তুলে দেওয়া হয়।

নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান এম এ সবুর এর সভাপতিত্বে এবং   মহিউল আলম চৌধুরীর   সঞ্চালনায়  অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের জেনারেল সেক্রেটারি ড. নুর হোসাইন।
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মাহফুজুল হক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি  হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাঁশখালীর সাধনপুর ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান  মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন  চট্টবাংলা টিভির বার্তা সম্পাদক গৌতম চক্রবর্তী ,৫ নং ওয়ার্ড়ে মেম্বার করুণ ভট্টাচার্য,অনুপম বড়ুয়া পারু,ইকবাল উদ্দিন ফারুকী,ড.সন্জয়
পালসহ আরো অনেকে।

মাহফুজুল হক চৌধুরী বলেন  শীতার্তদের পাশে আসুন সবাই মিলে সহায়তার হাত বাড়াই এবং তাদের মুখে হাসি ফোটাই।

মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা  বলেন, নিষ্টা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগটা প্রশংসনীয়।আমরা চাই বাংলাদেশ একটি মানবিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে উঠুক।তাই নিষ্টা ফাউন্ডেশনের মতো,সমাজের  শীতার্ত হতদরিদ্র মানুষকে সাহায্য সহযোগিতা করার জন‍্য সামর্থ্যবান ও বিত্তশালী ব্যক্তিদের সাহায্য ও সহানুভূতির হাত সম্প্রসারিত করে   তাদের পাশে এসে দাঁড়ানো দরকার।

ড.নূর  হুোসাইন বলেন,করোনার কারণে সারাদেশে চাকরি হারিয়েছেন অসংখ্য মানুষ। আমাদের চেষ্টা ছিল পুরো করোনাকালেই নানাভাবে তাদের পাশে থাকার। তারই অংশ হিসেবে শীত মৌসুমে এবার বিতরণ করা হয়েছে কম্বল। সাধারণ মানুষের পাশে থাকার এই প্রচেষ্টা আমাদের আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

ট্যাগস :
আপডেট : ০৭:১২:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২
৩৭১ বার পড়া হয়েছে

নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বাঁশখালীতে জেলেদের কম্বল বিতরণ

আপডেট : ০৭:১২:১০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২

তীব্র কুয়াশা, কনকনে হিমেল হাওয়া সব মিলিয়ে অসহায় দরিদ্র প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কষ্টের সীমা থাকে না। এসব দরিদ্র প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রায় আরো বিরূপ প্রভাব ফেলে। কর্মসংস্থান বন্ধ সহ নানা অসুখ-বিসুখ মিলিয়ে এই খেটে খাওয়া মানুষের অসহায়ত্বকে প্রকট করে তোলে। আর সবচেয়ে বড় কষ্টের ব্যাপার তখন হয়, যখন এই হাড়কাপানো শীতেও  তাদের শীত নিবারণের জন্য পর্যাপ্ত শীত বস্ত্র   থাকে না।   এসব হতদরিদ্র শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে    মানবতার সংগঠন নিষ্ঠা ফাউন্ডেশন।

রুক্ষ শীতের তীব্রতাতে হিমশীতল অনাদরে, মানবতাকে জড়িয়ে দেই উষ্ণতার চাদরে” এই স্লোগান কে সামনে রেখে  নিষ্ঠার উদ্যোগে বাঁশখালীস্থ বানীগ্রামে পালপাড়ায় জেলেদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

বুধবার  (২  ফেব্রুয়ারি )বিকালে  ৩০ জন  জেলে পরিবারের সদস্যদের হাতে  শীত বস্ত্র তুলে দেওয়া হয়।

নিষ্ঠা ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান এম এ সবুর এর সভাপতিত্বে এবং   মহিউল আলম চৌধুরীর   সঞ্চালনায়  অনুষ্ঠিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের জেনারেল সেক্রেটারি ড. নুর হোসাইন।
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মাহফুজুল হক চৌধুরী। বিশেষ অতিথি  হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাঁশখালীর সাধনপুর ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান  মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন  চট্টবাংলা টিভির বার্তা সম্পাদক গৌতম চক্রবর্তী ,৫ নং ওয়ার্ড়ে মেম্বার করুণ ভট্টাচার্য,অনুপম বড়ুয়া পারু,ইকবাল উদ্দিন ফারুকী,ড.সন্জয়
পালসহ আরো অনেকে।

মাহফুজুল হক চৌধুরী বলেন  শীতার্তদের পাশে আসুন সবাই মিলে সহায়তার হাত বাড়াই এবং তাদের মুখে হাসি ফোটাই।

মহিউদ্দিন চৌধুরী খোকা  বলেন, নিষ্টা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগটা প্রশংসনীয়।আমরা চাই বাংলাদেশ একটি মানবিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে উঠুক।তাই নিষ্টা ফাউন্ডেশনের মতো,সমাজের  শীতার্ত হতদরিদ্র মানুষকে সাহায্য সহযোগিতা করার জন‍্য সামর্থ্যবান ও বিত্তশালী ব্যক্তিদের সাহায্য ও সহানুভূতির হাত সম্প্রসারিত করে   তাদের পাশে এসে দাঁড়ানো দরকার।

ড.নূর  হুোসাইন বলেন,করোনার কারণে সারাদেশে চাকরি হারিয়েছেন অসংখ্য মানুষ। আমাদের চেষ্টা ছিল পুরো করোনাকালেই নানাভাবে তাদের পাশে থাকার। তারই অংশ হিসেবে শীত মৌসুমে এবার বিতরণ করা হয়েছে কম্বল। সাধারণ মানুষের পাশে থাকার এই প্রচেষ্টা আমাদের আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।