০৭:১৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে ডিবি কর্তৃক হারানো ইজিবাইক উদ্ধার

প্রতিনিধির নাম
চুয়াডাঙ্গা জেলার মানবিক পুলিশ সুপার খ্যাত  মোঃ জাহিদুল ইসলাম এঁর মধ্যস্থতায় হারানো ইজিবাইক ফিরে পেল ইজিবাইকের প্রকৃত মালিক। চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা থানাধীন নতিডাঙ্গা গ্রামস্থ জনৈক আসিরুল ইসলাম এর স্ত্রী মোছাঃ দীপালী খাতুন গত ১০.০১.২০২২ খ্রিঃ তারিখ পুলিশ সুপারের কার্যালয় হাজির হয়ে পুলিশ সুপার মহোদয়কে জানান যে, তার কষ্টোর্জিত টাকায় ক্রয়কৃত সবুজ রংয়ের ইজিবাইকটি  শাহাবুল ইসলাম, পিতা-সিরাজুল ইসলাম, সাং-ইব্রাহিমপুর মল্লিক বাড়ীর সামনে, থানা-দামুড়হুদা, জেলা-চুয়াডাঙ্গাকে প্রতিদিন ৪০০/- টাকা ভাড়ায় প্রদান করে। কিছুদিন ভাড়ার টাকা ঠিকমত প্রদান করার পর শাহাবুল ইসলাম ছলচাতুরী করতে থাকে। একপর্যায়ে টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেয় খোজ নিয়ে ভুক্তভোগী অসহায় দরিদ্র দীপালী খাতুন জানতে পারে প্রতারণা পূর্বক তার ইজিবাইকটি শাহাবুল অন্যত্র বিক্রয় করে দিয়েছে। ইজিবাইক ফেরত চাইলে শাহাবুল ইজিবাইকটির মালিকানা দাবী করে এবং বিভিন্ন ধরণের তালবাহানা করতে থাকে।
পুলিশ সুপার মহোদয় ভুক্তভোগী অসহায়, দরিদ্র দীপালী খাতুন এর কষ্ট উপলব্দি করে তাৎক্ষণিকভাবে উক্ত ইজিবাইকটি উদ্ধারের জন্য জেলা গোয়েন্দা শাখা, চুয়াডাঙ্গা’কে নির্দেশ প্রদান করেন। জনাব মাহাব্বুর রহমান, অফিসার ইনচার্জ, জেলা গোয়েন্দা শাখা, চুয়াডাঙ্গা এবং এএসআই রমেন কুমার সরকার উক্ত ইজিবাইকটি উদ্ধারের জন্য আন্তরিকতার সাথে চেষ্টা চালিয়ে যান। অবশেষে  ১৭.০১.২০২২ খ্রিঃ তারিখ বেলা ১২ টার সময় জেলা গোয়েন্দা শাখার চৌকস টিম উক্ত ইজিবাইকটি মেহেরপুর জেলা থেকে উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সক্ষম হন। পুলিশ সুপারের নির্দেশে হারানো ইজিবাইকটির প্রকৃত মালিক দীপালী খাতুন কে প্রদান করা হয়। ভুক্তভোগী দীপালী খাতুনেরর সাথে প্রতারণা করলেও উক্ত শাহাবুলের প্রতি কোন অভিযোগ না থাকায় উভয় পক্ষের সম্মতিতে বিষয়টি আপোষ মিমাংসা করা হয়।
ট্যাগস :
আপডেট : ১১:৩৬:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২
১৩১ বার পড়া হয়েছে

পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপে ডিবি কর্তৃক হারানো ইজিবাইক উদ্ধার

আপডেট : ১১:৩৬:৫৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২
চুয়াডাঙ্গা জেলার মানবিক পুলিশ সুপার খ্যাত  মোঃ জাহিদুল ইসলাম এঁর মধ্যস্থতায় হারানো ইজিবাইক ফিরে পেল ইজিবাইকের প্রকৃত মালিক। চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা থানাধীন নতিডাঙ্গা গ্রামস্থ জনৈক আসিরুল ইসলাম এর স্ত্রী মোছাঃ দীপালী খাতুন গত ১০.০১.২০২২ খ্রিঃ তারিখ পুলিশ সুপারের কার্যালয় হাজির হয়ে পুলিশ সুপার মহোদয়কে জানান যে, তার কষ্টোর্জিত টাকায় ক্রয়কৃত সবুজ রংয়ের ইজিবাইকটি  শাহাবুল ইসলাম, পিতা-সিরাজুল ইসলাম, সাং-ইব্রাহিমপুর মল্লিক বাড়ীর সামনে, থানা-দামুড়হুদা, জেলা-চুয়াডাঙ্গাকে প্রতিদিন ৪০০/- টাকা ভাড়ায় প্রদান করে। কিছুদিন ভাড়ার টাকা ঠিকমত প্রদান করার পর শাহাবুল ইসলাম ছলচাতুরী করতে থাকে। একপর্যায়ে টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেয় খোজ নিয়ে ভুক্তভোগী অসহায় দরিদ্র দীপালী খাতুন জানতে পারে প্রতারণা পূর্বক তার ইজিবাইকটি শাহাবুল অন্যত্র বিক্রয় করে দিয়েছে। ইজিবাইক ফেরত চাইলে শাহাবুল ইজিবাইকটির মালিকানা দাবী করে এবং বিভিন্ন ধরণের তালবাহানা করতে থাকে।
পুলিশ সুপার মহোদয় ভুক্তভোগী অসহায়, দরিদ্র দীপালী খাতুন এর কষ্ট উপলব্দি করে তাৎক্ষণিকভাবে উক্ত ইজিবাইকটি উদ্ধারের জন্য জেলা গোয়েন্দা শাখা, চুয়াডাঙ্গা’কে নির্দেশ প্রদান করেন। জনাব মাহাব্বুর রহমান, অফিসার ইনচার্জ, জেলা গোয়েন্দা শাখা, চুয়াডাঙ্গা এবং এএসআই রমেন কুমার সরকার উক্ত ইজিবাইকটি উদ্ধারের জন্য আন্তরিকতার সাথে চেষ্টা চালিয়ে যান। অবশেষে  ১৭.০১.২০২২ খ্রিঃ তারিখ বেলা ১২ টার সময় জেলা গোয়েন্দা শাখার চৌকস টিম উক্ত ইজিবাইকটি মেহেরপুর জেলা থেকে উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সক্ষম হন। পুলিশ সুপারের নির্দেশে হারানো ইজিবাইকটির প্রকৃত মালিক দীপালী খাতুন কে প্রদান করা হয়। ভুক্তভোগী দীপালী খাতুনেরর সাথে প্রতারণা করলেও উক্ত শাহাবুলের প্রতি কোন অভিযোগ না থাকায় উভয় পক্ষের সম্মতিতে বিষয়টি আপোষ মিমাংসা করা হয়।