০৭:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

বাউফলে এক অসহায় পরিবারকে ঘরের ব্যবস্থা করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার 

মোঃ জসীম উদ্দিন বাউফল, (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি 
পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার এক অসহায় পরিবারকে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের ব্যবস্থা করে দিয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ বশির গাজী।
 উপজেলার বগা বন্দরের পশ্চিম পাশে পুত্র গোপাল (১৭) মিস্ত্রিকে নিয়ে একটি ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করে আসছেন সুরামনি (৬৫) কষ্টের কোন শেষ নেই। স্বামী যুগোল মিস্ত্রীকে হাড়িছেন কয়েক বছর আগ। তবু বেঁচে আছেন একমাত্র অবলম্বন পুত্রের মুখের দিকে তাকিয়ে। একদিন হয়ত সুখ এসে ধরা দেবে সেই আশায়। অন্যের দেয়ায় চলে তার সংসার। কখনও খেয়ে কখনও না খেয়ে। নেই মাথা গোজার ঠাই। চিন্তায় রাতে ঘুম আসেনা সুরামনির। কোন জনপ্রতিনিধি নিচ্ছেন না তার খোঁজখবর। সমাজের বিত্তশীলরাও উদাসিন। ঠিক এমনই এক মুহুর্তে সুরামনির কপাল খুলে গেলো এক মানবিক ব্যক্তির দেখা পেয়ে। মানবিক ওই ব্যক্তি আর কেউ নয়, তিনি হলেন পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. বশির গাজী।
 বগা  ইয়াকুব শরীফ ডিগ্রী কলেজের পূর্ব পাশে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে হতদরিদ্রদের জন্য নির্মিত আশ্রায়ন প্রকল্পের ২৫ টি ঘর নির্মাণের কাজ পরিদর্শনে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. বশির গাজী। এসময় সুরামনি  কে ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করতে দেখে তাৎক্ষনিক ভাবে তাকে একটি সরকারি ঘরের ব্যবস্থা করে দেন মানবিক ওই ইউএনও। ঘর পেয়ে আনন্দে ভাসছেন ওই বৃদ্ধা।
 কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, এখন আমার কষ্ট দুর হলো। মরার আগ একটু শান্তিতে থাকতে পারবো। আমার মাথা গোজার ঠাই করে দেয়ার জন্য মানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই।
ট্যাগস :
আপডেট : ১১:৫৬:২৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০২৩
৭৪ বার পড়া হয়েছে

বাউফলে এক অসহায় পরিবারকে ঘরের ব্যবস্থা করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার 

আপডেট : ১১:৫৬:২৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০২৩
পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার এক অসহায় পরিবারকে আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরের ব্যবস্থা করে দিয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ বশির গাজী।
 উপজেলার বগা বন্দরের পশ্চিম পাশে পুত্র গোপাল (১৭) মিস্ত্রিকে নিয়ে একটি ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করে আসছেন সুরামনি (৬৫) কষ্টের কোন শেষ নেই। স্বামী যুগোল মিস্ত্রীকে হাড়িছেন কয়েক বছর আগ। তবু বেঁচে আছেন একমাত্র অবলম্বন পুত্রের মুখের দিকে তাকিয়ে। একদিন হয়ত সুখ এসে ধরা দেবে সেই আশায়। অন্যের দেয়ায় চলে তার সংসার। কখনও খেয়ে কখনও না খেয়ে। নেই মাথা গোজার ঠাই। চিন্তায় রাতে ঘুম আসেনা সুরামনির। কোন জনপ্রতিনিধি নিচ্ছেন না তার খোঁজখবর। সমাজের বিত্তশীলরাও উদাসিন। ঠিক এমনই এক মুহুর্তে সুরামনির কপাল খুলে গেলো এক মানবিক ব্যক্তির দেখা পেয়ে। মানবিক ওই ব্যক্তি আর কেউ নয়, তিনি হলেন পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. বশির গাজী।
 বগা  ইয়াকুব শরীফ ডিগ্রী কলেজের পূর্ব পাশে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে হতদরিদ্রদের জন্য নির্মিত আশ্রায়ন প্রকল্পের ২৫ টি ঘর নির্মাণের কাজ পরিদর্শনে যান উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. বশির গাজী। এসময় সুরামনি  কে ঝুপড়ি ঘরে বসবাস করতে দেখে তাৎক্ষনিক ভাবে তাকে একটি সরকারি ঘরের ব্যবস্থা করে দেন মানবিক ওই ইউএনও। ঘর পেয়ে আনন্দে ভাসছেন ওই বৃদ্ধা।
 কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, এখন আমার কষ্ট দুর হলো। মরার আগ একটু শান্তিতে থাকতে পারবো। আমার মাথা গোজার ঠাই করে দেয়ার জন্য মানবতার মা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই।