১১:২২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

বান্দরবানে “পার্বত্য রত্ন” উপাধিতে ভূষিত হলেন পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি

প্রতিনিধির নাম
বান্দরবান ৩০০নং আসন থেকে একটানা ৬(ছয়)বারের নির্বাচিত এমপি,
দীর্ঘ ৩০বছর ধরে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে অবিচ্ছিন্ন ভাবে নিজের অবস্থান ধরে রাখা,বান্দরবান সহ পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা,পার্বত্য এলাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার প্রসার,স্বাস্থ্যসেবায় উন্নয়ন,বিদ্যুতায়ন, মসজিদ,কেয়াং,গির্জা,মন্দির স্থাপন সহ বিভিন্নভাবে পার্বত্য জনপদে উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার স্বরুপ “পার্বত্য রত্ন” খেতাবে ভূষিত হলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।
১৭মার্চ (বৃহস্পতিবার) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবর রহমানের ১০২তম জন্ম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের আয়োজনে বান্দরবান রাজার মাঠে এক আনন্দ সমাবেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি মহোদয় কে “পার্বত্য রত্ন” খেতাবে ভূষিত করা হয়।
তার হাতে হাজার হাজার নেতাকর্মির সামনে সম্মাননা স্বারক তুলে দেন বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের সভাপতি বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব ক্যশৈহ্লা,জেলা আওয়ামিলীগের সাধারন সম্পাদক জনাব ইসলাম বেবী।বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক জনাব লক্ষীপদ দাশ।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের নেতৃবৃন্দ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মি ও প্রশাসনের কর্মকর্তা বৃন্দ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন,পার্বত্য বাসীর ভালবাসা আর বিশ্বাসে জনগণের ভোটে ৩০০নং আসন থেকে একটানা ৬বার এমপি হিসাবে নির্বাচিত হয়ে আসছি।বার বার জনগন আমাকে তাদের হ্দয়ে স্থান দিচ্ছে।
আবারো জগনের এই বিশেষ উপাধি পেয়ে নিজেকে ধন্যে মনে হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন,আমি বান্দরবান বাসীর দোয়া চাই,যেন আমাকে দেয়া এই খেতাব মাথায় নিয়ে সকলের ভালবাসা অক্ষুণ্ণ রাখতে পারি।
মন্ত্রী আরো বলেন,জাতির পিতার জন্ম না হলে আজ আমরা একটা স্বাধীন দেশ পেতাম না,আমরা থাকতাম পরাধীন। আজ জাতির পিতার আত্বার শান্তির জন্য আমি সকলের নিকট দোয়া কামনা করি।
মন্ত্রী আরো বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রামে যত উন্নয়ন হয়েছে সব কিছু একমাত্র শেখ হাসিনার অবদানে হয়েছে।আমি হলাম শেখ হাসিনার বাহক মাত্র।জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৯৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর পার্বত্য শান্তি চুক্তি হয়েছিল বলেই আজ পার্বত্য এলাকায় উন্নয়ন ও শান্তিরধারা অব্যাহত রয়েছে।
মন্ত্রী মহোদয় উপস্থিত সবাইকে ধন্যেবাদ জানিয়ে আগামিতে পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার আহবান জানান।
ট্যাগস :
আপডেট : ০৭:৪৪:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২১ মার্চ ২০২২
১৫৫ বার পড়া হয়েছে

বান্দরবানে “পার্বত্য রত্ন” উপাধিতে ভূষিত হলেন পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি

আপডেট : ০৭:৪৪:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২১ মার্চ ২০২২
বান্দরবান ৩০০নং আসন থেকে একটানা ৬(ছয়)বারের নির্বাচিত এমপি,
দীর্ঘ ৩০বছর ধরে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য নিরলস ভাবে কাজ করে অবিচ্ছিন্ন ভাবে নিজের অবস্থান ধরে রাখা,বান্দরবান সহ পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা,পার্বত্য এলাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার প্রসার,স্বাস্থ্যসেবায় উন্নয়ন,বিদ্যুতায়ন, মসজিদ,কেয়াং,গির্জা,মন্দির স্থাপন সহ বিভিন্নভাবে পার্বত্য জনপদে উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার স্বরুপ “পার্বত্য রত্ন” খেতাবে ভূষিত হলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি।
১৭মার্চ (বৃহস্পতিবার) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবর রহমানের ১০২তম জন্ম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের আয়োজনে বান্দরবান রাজার মাঠে এক আনন্দ সমাবেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি মহোদয় কে “পার্বত্য রত্ন” খেতাবে ভূষিত করা হয়।
তার হাতে হাজার হাজার নেতাকর্মির সামনে সম্মাননা স্বারক তুলে দেন বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের সভাপতি বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব ক্যশৈহ্লা,জেলা আওয়ামিলীগের সাধারন সম্পাদক জনাব ইসলাম বেবী।বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক জনাব লক্ষীপদ দাশ।
এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বান্দরবান জেলা আওয়ামিলীগের নেতৃবৃন্দ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মি ও প্রশাসনের কর্মকর্তা বৃন্দ।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন,পার্বত্য বাসীর ভালবাসা আর বিশ্বাসে জনগণের ভোটে ৩০০নং আসন থেকে একটানা ৬বার এমপি হিসাবে নির্বাচিত হয়ে আসছি।বার বার জনগন আমাকে তাদের হ্দয়ে স্থান দিচ্ছে।
আবারো জগনের এই বিশেষ উপাধি পেয়ে নিজেকে ধন্যে মনে হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন,আমি বান্দরবান বাসীর দোয়া চাই,যেন আমাকে দেয়া এই খেতাব মাথায় নিয়ে সকলের ভালবাসা অক্ষুণ্ণ রাখতে পারি।
মন্ত্রী আরো বলেন,জাতির পিতার জন্ম না হলে আজ আমরা একটা স্বাধীন দেশ পেতাম না,আমরা থাকতাম পরাধীন। আজ জাতির পিতার আত্বার শান্তির জন্য আমি সকলের নিকট দোয়া কামনা করি।
মন্ত্রী আরো বলেন,পার্বত্য চট্টগ্রামে যত উন্নয়ন হয়েছে সব কিছু একমাত্র শেখ হাসিনার অবদানে হয়েছে।আমি হলাম শেখ হাসিনার বাহক মাত্র।জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৯৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর পার্বত্য শান্তি চুক্তি হয়েছিল বলেই আজ পার্বত্য এলাকায় উন্নয়ন ও শান্তিরধারা অব্যাহত রয়েছে।
মন্ত্রী মহোদয় উপস্থিত সবাইকে ধন্যেবাদ জানিয়ে আগামিতে পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করার আহবান জানান।