১০:৪৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

রাজশাহীতে ছেলের বিরুদ্ধে বাবাকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
রাজশাহীতে ছেলের বিরুদ্ধে বাবাকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। দ্বিতীয় বিয়ে করতে চাওয়ায় বাবাকে গলাকেটে হত্যার পর বাড়ির টয়লেটের সেফটিক ট্যাংকে লাশ ফেলে দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি ) সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। ঘটনাটি ঘটে রাজশাহী নগরীর দামকুড়া থানা আসগ্রাম পাটনিপাড়া গ্রামে।
নিহতের নাম সাজ্জাদ হোসেন (৬৫)। তার সন্তান স্বপন (৩২) মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে বাবাকে গলাকেটে হত্যার পর লাশ সেফটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়া বলে প্রাথমিকভাবে সে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।
দামকুড়া থানা সুত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত থেকে সাজ্জাদ হোসেন নিখোঁজ ছিল। বুধবার রাতে তার ভাই আব্দুল হাদী থানায় সাধারণ ডায়রী করেন। এর সূত্র ধরে পুলিশ স্বপনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এবং স্বপন স্বীকার করে তিনি তার বাবাকে প্রথমে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করেন। এতে ব্যর্থ হলে গলাকেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে লাশ বাড়ির টয়লেটের সেফটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়।
আরও জানা যায়, এক বছর আগে তার মা মারা যান। এরপর বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করার জন্য চেষ্টা করছিল। তাদের কথা শুনছিল না। দ্বিতীয় বিয়ে করলে সম্পত্তি ভাগ হয়ে যাবে এই আশঙ্কা থেকেই সে তার বাবাকে হত্যা করে।
ট্যাগস :
আপডেট : ০৪:০৮:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২
৩৪০ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীতে ছেলের বিরুদ্ধে বাবাকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ

আপডেট : ০৪:০৮:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২
রাজশাহীতে ছেলের বিরুদ্ধে বাবাকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। দ্বিতীয় বিয়ে করতে চাওয়ায় বাবাকে গলাকেটে হত্যার পর বাড়ির টয়লেটের সেফটিক ট্যাংকে লাশ ফেলে দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি ) সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। ঘটনাটি ঘটে রাজশাহী নগরীর দামকুড়া থানা আসগ্রাম পাটনিপাড়া গ্রামে।
নিহতের নাম সাজ্জাদ হোসেন (৬৫)। তার সন্তান স্বপন (৩২) মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে বাবাকে গলাকেটে হত্যার পর লাশ সেফটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়া বলে প্রাথমিকভাবে সে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।
দামকুড়া থানা সুত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত থেকে সাজ্জাদ হোসেন নিখোঁজ ছিল। বুধবার রাতে তার ভাই আব্দুল হাদী থানায় সাধারণ ডায়রী করেন। এর সূত্র ধরে পুলিশ স্বপনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এবং স্বপন স্বীকার করে তিনি তার বাবাকে প্রথমে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করেন। এতে ব্যর্থ হলে গলাকেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে লাশ বাড়ির টয়লেটের সেফটিক ট্যাংকে ফেলে দেয়।
আরও জানা যায়, এক বছর আগে তার মা মারা যান। এরপর বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করার জন্য চেষ্টা করছিল। তাদের কথা শুনছিল না। দ্বিতীয় বিয়ে করলে সম্পত্তি ভাগ হয়ে যাবে এই আশঙ্কা থেকেই সে তার বাবাকে হত্যা করে।