০৯:১৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৯ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞপ্তি

সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন শাহ্সুফি সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী

প্রতিনিধির নাম
মরক্কোর ঐতিহাসিক শহর গুয়েলমিমে, শাহ্জাদা সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী ১৭মে ২০২৩ থেকে ’10th International Sufism Conference’-এ বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগদান করেছেন। তার সফরসঙ্গী হিসেবে সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছেন, মইনীয়া যুব ফোরামের এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট, সাইয়্যিদ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন আল হাসানী।
এ সম্মেলনের আলোচনার মূল বিষয় ছিল ‘আধুনিক সমাজ বিনির্মাণে সুফি তরিকার প্রভাব এবং নিজ নিজ দেশকে গড়তে, সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিতে সুফিদের করণীয়।”
সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী উল্লিখিত বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি, মরক্কোর স্বাধীনতার অগ্রনায়ক, শেইখ মা আল আইনিনের মহৎ বীরত্ব ও আত্নত্যাগকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তিনি বিশ্বের সুফিদেরকে তাদের খানকাহ্ শরীফ থেকে বেরিয়ে এসে সামাজিক ও নাগরিক সমস্যাগুলো সমাধানে কার্যকরী অবদান রাখার আহবান জানান।
১৯শে মে ২০২৩, মাইজভাণ্ডার শরীফের সাজ্জাদানশিন, অন্যান্য সুফি শেইখদের সাথে ‘আধুনিক যুগে তাসাউফের গুরুত্ব’ শীর্ষক সাধারণ ডিবেটে অংশগ্রহণ করেন।
শাহ্সুফি সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী রচিত গ্রন্থ ‘The Essence of Tasawwuf’ এর জন্য যুক্তরাজ্যের ‘International Academy of Sufi Scholars’ তাকে ‘সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি’ প্রদান করে।
এ গ্রন্থে তিনি ‘কাদিরিয়া মাইজভাণ্ডারীয়া তরিকা’ এর ঐতিহ্য, একজন মানুষের মহামহিম, সর্বশক্তিমান আল্লাহর পথে যাত্রা, আধ্যাত্নিক পথের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নানা দিক, তাসাউফ এর ঐশ্বর্য অর্জনের জন্য একজন প্রকৃত সুফি শেইখের সান্নিধ্যে গমনের গুরুত্ব অত্যন্ত সফলতার সাথে সহজভাবে উপস্থাপন করেছেন।
সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদানের পর একাডেমির শীর্ষ স্কলারগণ এবং সম্মেলনের স্কলারবৃন্দ বুদ্ধিজীবীগণ ও গবেষকগণ তাকে অভিনন্দন জানান।
এর পাশাপাশি মরক্কোর ‘Sheikh Ma Al Aynayn Foundation for Science & Heritage’, মিশরের ‘Organisation for Tolerance & Peace’ এবং যুক্তরাজ্যের ‘The Academy of Sufi Scholars’, তাসাউফের বাণী প্রচার প্রসারে তার বহুমুখী অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করেছে।
প্রায় ১০ দিনের মরক্কো সফর শেষে ২৭ মে ২০২৩, তার বাংলাদেশে ফেরার কথা রয়েছে।
ট্যাগস :
আপডেট : ১১:৪৩:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ মে ২০২৩
৮৩ বার পড়া হয়েছে

সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন শাহ্সুফি সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী

আপডেট : ১১:৪৩:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ মে ২০২৩
মরক্কোর ঐতিহাসিক শহর গুয়েলমিমে, শাহ্জাদা সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী ১৭মে ২০২৩ থেকে ’10th International Sufism Conference’-এ বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগদান করেছেন। তার সফরসঙ্গী হিসেবে সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেছেন, মইনীয়া যুব ফোরামের এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট, সাইয়্যিদ মাশুক-এ-মইনুদ্দীন আল হাসানী।
এ সম্মেলনের আলোচনার মূল বিষয় ছিল ‘আধুনিক সমাজ বিনির্মাণে সুফি তরিকার প্রভাব এবং নিজ নিজ দেশকে গড়তে, সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিতে সুফিদের করণীয়।”
সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী উল্লিখিত বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি, মরক্কোর স্বাধীনতার অগ্রনায়ক, শেইখ মা আল আইনিনের মহৎ বীরত্ব ও আত্নত্যাগকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তিনি বিশ্বের সুফিদেরকে তাদের খানকাহ্ শরীফ থেকে বেরিয়ে এসে সামাজিক ও নাগরিক সমস্যাগুলো সমাধানে কার্যকরী অবদান রাখার আহবান জানান।
১৯শে মে ২০২৩, মাইজভাণ্ডার শরীফের সাজ্জাদানশিন, অন্যান্য সুফি শেইখদের সাথে ‘আধুনিক যুগে তাসাউফের গুরুত্ব’ শীর্ষক সাধারণ ডিবেটে অংশগ্রহণ করেন।
শাহ্সুফি সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী রচিত গ্রন্থ ‘The Essence of Tasawwuf’ এর জন্য যুক্তরাজ্যের ‘International Academy of Sufi Scholars’ তাকে ‘সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি’ প্রদান করে।
এ গ্রন্থে তিনি ‘কাদিরিয়া মাইজভাণ্ডারীয়া তরিকা’ এর ঐতিহ্য, একজন মানুষের মহামহিম, সর্বশক্তিমান আল্লাহর পথে যাত্রা, আধ্যাত্নিক পথের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নানা দিক, তাসাউফ এর ঐশ্বর্য অর্জনের জন্য একজন প্রকৃত সুফি শেইখের সান্নিধ্যে গমনের গুরুত্ব অত্যন্ত সফলতার সাথে সহজভাবে উপস্থাপন করেছেন।
সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদানের পর একাডেমির শীর্ষ স্কলারগণ এবং সম্মেলনের স্কলারবৃন্দ বুদ্ধিজীবীগণ ও গবেষকগণ তাকে অভিনন্দন জানান।
এর পাশাপাশি মরক্কোর ‘Sheikh Ma Al Aynayn Foundation for Science & Heritage’, মিশরের ‘Organisation for Tolerance & Peace’ এবং যুক্তরাজ্যের ‘The Academy of Sufi Scholars’, তাসাউফের বাণী প্রচার প্রসারে তার বহুমুখী অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করেছে।
প্রায় ১০ দিনের মরক্কো সফর শেষে ২৭ মে ২০২৩, তার বাংলাদেশে ফেরার কথা রয়েছে।