বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০১:১২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
ছাতকের পরিস্থিতি ভয়াবহ,সারা‌দে‌শে সঙ্গে সড়ক যোগা‌যোগ বন্ধ পিরোজপুরে বাস চাপায় কলেজ ছাত্র নিহত ১৭ মে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা,গণতন্ত্রের অগ্নিবীণা ও উন্নয়ন-প্রগতির প্রত্যাবর্তনঃ তথ্যমন্ত্রী নাজিরপুর অঞ্চলের কৃষকের স্বপ্ন প্রতি বছর তলিয়ে যায় পানির নিচে কালিহাতীতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন রাজশাহী জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের ভোট স্থগিত প্রফেসর ডাক্তার উত্তম কুমার বড়ুয়াকে সংবর্ধিত করলো মিলন-পুর্নিমা ফাউন্ডেশন ঈদগাঁওর ৫ ইউনিয়নে আওয়ামী রাজনৈতিক অঙ্গনে চাঙ্গাভাব: উচ্ছাস তৃনমূলে চট্টগ্রামের হিজরা সুমন মানবিক কাজে আত্ম তৃপ্তি পান সরিষাবাড়ীতে দুই শিশু শিক্ষার্থী হারানোকে কেন্দ্র করে মাদ্রাসায় হামলা ভাঙচুর ও শিক্ষককে লাঞ্ছিত

আবেদন করেও প্রতিবন্ধী জিকু মিয়ার ভাগ্যে জুটেনি সরকারি ঘর

শিলা বৃষ্টিতে পলেথিনের ঘর জরাজীর্ণ হওয়ায় বর্তমানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কনকনে শীতে মানবেতর জীবন নিয়ে বসবাস করছে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জিকু মিয়া।
ঘর সংস্কারের আর্থিক সাহায্য ও নতুন সরকারী পাকা ঘরের জন্য নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে আবেদন করেও মেলেনি কোন ধরণের প্রতিকার উল্টো ঘুড়তে হয়েছে ইউএনও অফিস চত্তরে দিনের পর দিন।
নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা উপজেলা সাহতা ইউনিয়নের সাহতা এলাকার সালেক মিয়ার ছেলে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জিকু মিয়া (৩০)। নিজের কোন জায়গা নেই সরকারি খাস জমিতে ভাঙ্গা বাঁশের পলেথিনের ঘর শিলা বৃষ্টিতে ভেঙ্গে জরাজীর্ণ অবস্থায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন অসহায় হতদরিদ্র দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জিকু মিয়া।
সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সরকারি জায়গায় পলেথিন ও বাশেঁর চালা দিয়ে ঘর করে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কনকনে শীতে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে তার। উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের দেওয়া তিন মাস অন্তর অন্তর প্রতিবন্ধী ভাতা ২১৫০/- দিয়ে চলে তার সংসার।
অশ্রুশীক্ত চোখে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জিকু মিয়া বাংলাদেশ সমাচারের সংবাদকর্মীকে জানান, আমি ঘরের সংস্কার ও একটি সরকারী ঘরের জন্য দরখাস্ত সাহতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বরাবরে দিলে তিনি সরেজমিনে তদন্ত করে গত (১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০) বারহাট্টা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে ঘর সংস্কার ও সরকারী ঘরের সুপারিশ করেন তিনি।
এদিকে গত (৩০ আগষ্ট ২০২১) বারহাট্টা নির্বাহী কর্মকর্তা উপজেলা ডাক ফাইলে লিখিত আবেদন না পড়ে তিনি সমাজ সেবা অধিদপ্তরে পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করেন। এরপর থেকে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জিকু মিয়া কয়েক মাস ধরে বারহাট্টা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে দিনের পর দিন ঘুরতে থাকেন।
গণমাধ্যমকর্মীর চোখে পড়লে জিকু মিয়া উপজেলা কার্যালয়ের গোল চেয়ারে বসে অপেক্ষা করছেন নির্বাহী কর্মকর্তা কখন আসবেন। উল্লেক্ষ্য করে জিঙ্গাসা করলে উত্তরে আবেগ আফ্লুত চোখের জলে তিনি জানান, কয়েক মাস ধরে ঘুরতেছি ইউএনও সাথে দেখা করবো আমার ঘরের চালা নেই পলেথিনের ঘর বসবাস করতে পারি না।
এদিকে তার একথা শুনে সাবেক বারহাট্টা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গোলাম মোর্শেদের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান আমি দৃষ্টি প্রতিবন্ধি জিকু মিয়ার ঘরের জন‍্যে আবেদন জমা করে এসেছি, আমার সময়ের অভাবে আমি নিজে জিকু মিয়ার ঘরটি দিয়ে আসতে পারি নাই।তবে আবেদন করা আছে দ্রুত সময়ের মধ‍্যেই জিকু মিয়া সরকারি ঘর পাবে।
এ ব‍্যাপারে বতর্মান উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মাজহারুল ইসলামের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন,আমি একটু কাজে বাইরে আছি আপনারা অফিসে অপেক্ষা করুন, এভাবে সংবাদকর্মীকে এরিয়ে যান।
এ বিষয়ে বারহাট্টা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুহাম্মদ মাইনুল হক কাশেমের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সরজমিনে তার ঘরের অবস্থা দেখে সুপারিশ করি জিকু মিয়া দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সরকারী ঘর তার জন্য নতুন পাকা ঘর পেলেই কিছুটা হলেও ভালো থাকবেন তিনি।
এ ব‍্যাপারে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কাজি আবদুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর অবশ্যই দৃষ্টি প্রতিবন্ধি জিকু মিয়া পাবে আমি ইউএনওকে বলছি সরেজমিনে তদন্ত করে জিকু মিয়াকে যেন একটি সরকারি ঘরের ব‍্যবস্হা করে দেয়।
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জিকু মিয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নেত্রকোনার মানবিক জেলা প্রশাসক কাজি আবদুর রহমান এবং বারহাট্টা উপজেলার সাহসী ও কর্মদক্ষ উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম মাজহারুল ইসলামের নিকট একটি সরকারি ঘরের জন্য আকুতি জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved