মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
বিএলএফ চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা কমিটির উদ্যোগে শ্রমিকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত শ্রীমঙ্গলে এমসিডা আলোয়- আলো কিশোর কিশোরী বালিকা ফুটবল টুর্নামেন্ট -২০২৩ খ্রিঃ তুরস্কে ভূমিকম্পে নিহত ১১৮, ধ্বংসস্তূপে আটকে আছেন বহু মানুষ আমার মন্তব্য ছিল ফখরুলকে নিয়ে, হিরো আলম নয়: কাদের রিয়ালের হার, শীর্ষস্থানের পয়েন্ট বাড়াল বার্সেলোনা ইবিতে ছাত্রলীগের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত  আইডিয়াল কমার্স কলেজ ও আইডিয়াল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের  শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়ন শীর্ষক  কর্মশালা আদালতের আদেশ অমান্য করে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ শহিদ এএইচএম কামরুজ্জামানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা বাংলা মায়ের টানে মুক্তিযুদ্ধে  অংশ নিয়েছিল এদেশের বীর সন্তানরা                                                     

গুচ্ছ ভর্তি পক্রিয়ার অব্যবস্থাপনায় বিপাকে শিক্ষার্থীরা

গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিতে একের পর এক নতুন সিদ্ধান্তে পিষ্ঠ ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। সেশনজট এড়াতে যেভাবে তড়িঘড়ি করে ভর্তি পরীক্ষা এক মাস এগিয়ে আনা হয়েছিলো তার ফল তো পেলোই না শিক্ষার্থীরা। বরং ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার চার মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও ভর্তি প্রক্রিয়াই এখনো  শেষ করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। উল্টো এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইগ্রেশন পদ্ধতি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এতে অধিক নম্বর পেয়ে পিছনের সারির বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি শিক্ষার্থীরা অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য বিবেচিত হচ্ছেন না।
২০ আগস্টে পরীক্ষার কার্যক্রম সম্পন্ন  হলেও গুচ্ছ কর্তৃপক্ষ ওয়েবসাইট আপডেট করনের নামে শিক্ষার্থীদের বসিয়ে রাখে প্রায় দুই মাস। এরপর নভেম্বর মাস থেকে শুরু হয় ভর্তি কার্যক্রম। এখন পর্যন্ত ৬টি মেধাতালিকায় বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন চালু থাকলেও সপ্তম মেধা তালিকা থেকে বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন  বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এতে ৫৫ এর বেশি নাম্বার পাওয়া শিক্ষার্থীরাও বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন এর সুবিধা নিতে পারছে না। যেহেতু একজন শিক্ষার্থী একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাচ্ছিল এখন মাইগ্রেশন বন্ধ হয়ে যাওয়াতে বিপাকে পড়েছে শিক্ষার্থীরা।  উপরের সারির বিশ্ববিদ্যালয়ের সিট ফাঁকা থাকা সত্ত্বেও তারা এখন আর সেখানে ভর্তি হতে পারবে না ।
 সপ্তম মেধা তালিকা থেকে ভর্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য মতে বলা হয়েছে  সপ্তম মেধাতালিকা থেকে আবেদনকারী GST গুচ্ছভুক্ত এক বা একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য বিবেচিত হলে তাকে অবশ্যই তার পছন্দমত একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাথমিক ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। অন্যথায় GST গুচ্ছভুক্ত কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবে না। এই পর্যায় থেকে প্রাথমিক ভর্তিকৃত বিশ্ববিদ্যালয় ব্যতীত অন্য কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য বিবেচিত হবে না (বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ)। ভর্তিকৃত বিশ্ববিদ্যালয়ে তার বিভাগ পছন্দক্রম ও মেধা স্কোরের ভিত্তিতে প্রযোজ্যক্ষেত্রে বিভাগ মাইগ্রেশন চলমান থাকবে।
মাইগ্রেশন নিয়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ মুঠোফোনে বলেন,  বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন ও সপ্তম মেরিট লিস্ট থেকে ভর্তি প্রক্রিয়া এটা তো আমাদের একক কোন সিদ্ধান্ত না গুচ্ছভূক্ত সব বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সম্মিলিত বৈঠকে বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন বন্ধ নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই মাসের ভিতর আমরা ভর্তি পরীক্ষা শেষ করতে চাচ্ছি। এখন আমাদের প্রায় ৭০ থেকে ৭৮ শতাংশ  ভর্তির কার্যক্রম শেষ হয়েছে। আগামী মাসের ক্লাস শুরু করার চিন্তা করছি। প্রথম ৬টি মেরিট লিস্টে একরকম নিয়ম সপ্তম মেরিট লিস্ট থেকে মাইগ্রেশন নিয়ে  আলাদা নিয়মের ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা নিয়ে আমি কিছু বলতে চাচ্ছি না কারণ এটা ২২টা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সম্মিলিত সিদ্ধান্তের ভিত্তিতেই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, সেই সিদ্ধান্তটাই আমরা সবাইকে জানিয়ে দিয়েছি। যারা নাম্বার কম পেয়েছে তারা তো আর ভর্তি হতে পারবে না। তিনি বলেন  মাইগ্রেশন চালু রাখলে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ করতে আরও ছয় মাস সময় লাগবে। শুরু থেকে যদি মাইগ্রেশন অফ থাকতো তাহলে শিক্ষার্থীদের মাঝে মাইগ্রেশন নিয়ে কোন সমস্যা তৈরি হতো না  এ ব্যাপারে তিনি বলেন, আমরা তো তাদের ভর্তি হওয়ার জন্য  সুযোগ দিয়েছি আমরা অভ্যন্তরীণ মাইগ্রেশন চালু রাখছি। শিক্ষার্থীদের কিছু দাবির কথা বলতে গেলে তিনি বলেন আমি এই নিয়ে তর্ক করতে চাই না এই বলে তিনি ফোন কেটে দেন।
 ভর্তির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো
ক) বিশ্ববিদ্যালয় মাইগ্রেশন শেষ পর্যন্ত চালু রাখা
খ) আসন খালি রেখে মাইগ্রেশন বন্ধ না করা
গ)প্রয়োজনে প্রতি একদিন পর পর তালিকা  প্রকাশ করে সময় কমিয়ে নিয়ে আসা।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা কমিটির যুগ্ম আহবায়ক অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক দেশের বাইরে থাকার কারণে তার সাথে হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে হলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
ম্রিন ময়ী নামে এক শিক্ষার্থী জানান, আমার সপ্তম মেরিটে সাবজেক্ট আসতো কিন্তু গুচ্ছের ছেলেখেলার বলি হলো আমার স্বপ্নগুলো। মেরিট পজিশন ৩৮১৭ দিয়ে কি লাভ হলো, ৬০+ মার্ক পেয়ে কি লাভ হলো? প্রথম মেরিটে বেরোবিতে ভর্তি হয়েছিলাম আর এত দিন অপেক্ষা করেছিলাম কবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যাল আসবে, কিন্তু ভাবিনি এভাবে অপেক্ষার অবসান হবে। চার চারটে বছর হতাশা আর না পাওয়ার ক্ষোভ নিয়ে কাটাতে হবে, হয়তো আমার মত আরও অনেকের ইচ্ছার জলাঞ্জলি হলো এভাবে।
মাহিয়া তাসনীম অধরা বলেন, তাড়াতাড়ি ভর্তি শেষ করতে চাইলে পরীক্ষা শেষ হওয়ার সাথে সাথেই  ভর্তি কার্যক্রম শুরু করার দরকার ছিল। তখন তারা সেশন জটের চিন্তা করে নাই।ওয়েবসাইট  রেডি করতেই ২ মাস লাগিয়ে দিয়েছে।
বেশ কিছু শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় গুচ্ছের এমন সিদ্ধান্তে তারা হাইকোর্টে রিট করতে পারেন।


বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved