সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:১০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
হাজিরহাট হামেদিয়া কামিল এমএ মাদ্রাসার সবক ও দোয়া অনুষ্ঠান ছাতকে ৩ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে  মাদ্রাসা ছাত্র সায়েজ আমিন  টঙ্গীতে সফিউদ্দিন সরকার একাডেমি এন্ড কলেজ এর ওরিয়েন্টেশন ও  নবীনবরণ অনুষ্ঠিত ঢাকার ধামরাইয়ে আমছিমুর গ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের দাবি শেরপুরে মঞ্চস্থ হলো নাটক ‘একাত্তরের বীরকন্যা’ জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে পরিত্যক্ত ৩টি শুটারগান উদ্ধার করেছে র‍্যাব ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় -২ উপনির্বাচনের এমপি প্রার্থী দুইদিন ধরে নিখোঁজ  নওগাঁয় অটো-চার্জার চাপায় এক শিশুর মৃত্যু কালাইয়ে নানা আয়োজন বিশ্ব কুষ্ঠ  দিবস পালিত তুমব্রু সীমান্তের বাস্তুচ্যূত রোহিঙ্গাদের ডাটা এন্ট্রি কার্যক্রম শুরু

মুন্সীগঞ্জে ঘন কুয়াশায় আতঙ্কে আলু চাষীরা 

শস্যভান্ডার বলে পরিচিত মুন্সীগঞ্জজেলার টঙ্গীবাড়ী উপজেলা। উপজেলায় আলুর পরিচর্যায় ব্যাস্ত সময় পার করছে স্থানীয় কৃষকরা। এবার আলু চাষ বেড়েছে এলাকায়। কৃষকরা চলতি মৌসুমে আলু ও সরিষা চাষের পর এখন পরিচর্যা করছেন। উপজেলার বিভিন্ন এলকায় চারদিক শুধু আলু ও সরিষা গাছের সবুজের সমাহরো।

রোপা আমন মৌসুমে কৃষকরা ধানের ন্যয্যমূল্যে না পেয়ে আগাম রোপা আমন কর্তন করে লাভের আশায় রবি শস্য ফসলের দিকে ঝুকে পরে। উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়নে অন্যন্যে বছরের চেয়ে এবার বেশি হয়েছে আলু ও সরিষা চাষ। যেসব জমিতে আলু সরিষা চাষ করা হয়েছে সেসব জমিতে সময় মত সেচ সার ওষুধ প্রয়োগ করাসহ আলু সরিষার পরিচর্যার কাজে এখন ব্যাস্ত সময় পার করছে কৃষকরা।

শীত মৌসুমের প্রথমদিকে আবহাওয়া পরোপুরি অনুকুলে থাকায় আলু ও সরিষার বাম্পার ফলনের আশায় বুক বেধেছিল এলাকার কৃষকরা। কিন্ত জানুয়ারীর শুরুতে লাগাতার শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশায় আলুর গাছে পাতায় মড়ক ধরেছে। ফলে আলুর ফলন বিপর্যয়ের শঙ্কায় আলু চাষিদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আগাম জাতের রোপন করা আলু তুলে বেশী দামে বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে অনেক কৃষক।

উপজেলার যশলং ও বালিগাওঁ এলাকার কৃষকরা বলেন, এবার আলু চাষে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন দেখলেও সেই স্বপ্ন আর পূরণ হচ্ছে না, আমাদের স্বপ্ন মনে হয় স্বপ্নই থেকে যাবে এই ঘন কুয়াশায় আলুর গাছ মারা যেতে শুরু করেছে, এইরকম প্রতিনিয়ত ঘন কুয়াশা হলে আমারা আলু চাষে সফল হতে পারব না তাই আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আতঙ্কে আছি।

উপজেলার টঙ্গীবাড়ীর মুটুক পুর গ্রামের কৃষক মোঃ হারুন মিয়া বলেন, ধান বিক্রি করে অন্যের তিন বিঘা জমি চানা নিয়ে ৬০ হাজার টাকা খরচ করে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে আলু চাষ করছিলাম, তবে এই শৈত্যপ্রবাহ এবং প্রচন্ড ঘন কুয়াশার কারণে আলুর গাছ মরতে শুরু করেছে ফলে আলুর ফলন নিয়ে বিপর্যয়ের শঙ্কায় আছি।

কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, এবার এই উপজেলায় ৩ হাজার হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধরণ করা হলেও প্রায় ১২ শ হেক্টর জমিতে আলু চাষ করা হচ্ছে।

তবে এই ঘনকুয়াশার ফলে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওযায় বাজারে এর প্রভাব পরবে বলে জানিয়েছেন আলু ব্যবসায়ীরা। আলু ও সরিষার চাষ গাছের পাতার মড়কও ফলন বিপর্যয়ের বিষয়ে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জানান, লাগাতার শৈত্যপ্রবাহ ঘন কুয়াশায় দু’এক জায়গা থেকে আলুর গাছে মরে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

আলুর গাছের মড়ক ঠেকাতে কৃষকদের ঔষধ প্রয়োগ করা পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া বর্তমানে তাপমাত্রা বেড়েছে আর শেত্যপ্রবাহ ও ঘনকুয়াশা না হলে আলু সরিষাসহ সবজির ক্ষতি হবে না এবং ফলনও ভালো হওয়ার আশা করা যায়।

 


বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved