সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:০১ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
আইডিয়াল কমার্স কলেজ ও আইডিয়াল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের  শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়ন শীর্ষক  কর্মশালা আদালতের আদেশ অমান্য করে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ শহিদ এএইচএম কামরুজ্জামানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা বাংলা মায়ের টানে মুক্তিযুদ্ধে  অংশ নিয়েছিল এদেশের বীর সন্তানরা                                                      বিশ্ব ক্যান্সার দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সাত্তার হল রুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক স্মৃতিময় সন্ধ্যায়  সফেনের স্বপ্নদ্রষ্টা ও আমরা ক’জন বাংলাদেশ প্রবীণ হিতৈষী সংঘ ও জরা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান নির্বাচন (2023-2025) ক্যাপ্টেন শামছুল হক-বীর মুক্তিযোদ্ধা ইন্তেজার রহমান প্যানেল-এ ভোট দিন। আব্দুল হালিম পাটওয়ারী ফাউন্ডেশন কর্তৃক ৫ম ও ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মেধা বৃত্তি প্রদান-২০২২ নওগাঁয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর অভিযানে ৬কেজি গাঁজাসহ আটক-১ নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত

নাইক্ষ্যংছড়িতে অর্থনীতির নতুন মাত্রা কার্পাস তুলা চাষ

পার্বত্য জেলা বান্দরবানে তামাক চাষের বিপরীতে সরকার নানা ধরনের চাষের জন্য প্রান্তিক চাষীদের উৎসাহ ও প্রশিক্ষণ দিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও বর্তমানে দারিদ্র্য বিমোচনে এবং কৃষকদের স্বনির্ভর করতে সরিষা চাষ, সূর্যমুখী ফুলের চাষ,মিশ্র সবজি চাষ এবং মাছ চাষের প্রতি বিভিন্নভাবে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করে যাচ্ছে সরকার। তারই ধারাবাহিকতায় নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় গত বছর থেকে কার্পাস তুলা চাষ করে যাচ্ছে নাইক্ষ্যংছড়ির প্রান্তিক কৃষকেরা।

পার্বত্য চট্টগ্রামের তুলা চাষ বৃদ্ধি ও কৃষকদের দারিদ্র্য বিমোচন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় প্রান্তিক কৃষকেরা এই কার্পাস তুলা চাষ করছে। যেখানে কৃষককে তুলার বীজ সংগ্রহ থেকে বিক্রি করা পর্যন্ত কোথাও ঝামেলায় পড়তে হয় না। সবই তুলা উন্নয়ন বোর্ড প্রদান করে থাকে এবং তুলাও চাষীদের কাছ থেকে ক্রয় করে তুলা উন্নয়ন বোর্ড।

তুলা উন্নয়ন বোর্ডের মংচচিং চাকের সাথে কথা হলে তিনি জানান,নাইক্ষ্যংছড়িতে ২০১১সালে চাকঢালায় আবদু রহমান নামে একজন চাষী প্রথম এই কার্পাস তুলার চাষ করেন। তিনি একাধারে ৪বছর চাষ করার পর বিদেশ চলে যায়। এরপর আর কেউ এই চাষ করে নি। গত বছর ২০২১-২২ অর্থ বছরে আবারও তুলা উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধানে চাষ শুরু হয়। দারিদ্র্য বিমোচন শীর্ষক প্রকল্পে ৯টি এবং রাজস্ব খাতে ১৪টি প্লটসহ মোট ২৩টি প্লটে চাষ করা হয়েছে। ২০২১-২০২২অর্থ বছরে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সদর ইউনিয়নের চাকঢালা বাজার পাড়া,মধ্যম চাকপাড়া,আশারতলী,ছাতুজাইপাড়া,গয়ালমারা,ম্রাচন চাক পাড়ায় এই কার্পাস তুলার চাষ করা হয়।
২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে দারিদ্র্য বিমোচন শীর্ষক প্রকল্পে ৫০টি এবং রাজস্ব খাতে ৫০টি প্লট বা বিঘা জমিতে এই তুলার চাষ করা হবে। সদর ইউনিয়ন ছাড়াও দোছড়ি ইউনিয়নের তুলাতলি, সোনাইছড়ির জারুলিয়া ছড়ায় ও পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের মৌলভী কাটায় এই কার্পাস তুলা চাষ করা হবে।

পার্বত্য চট্টগ্রামের তুলা চাষ বৃদ্ধি ও কৃষকদের দারিদ্র্য বিমোচন শীর্ষক প্রকল্পের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সহকারী কটন ইউনিট অফিসার সরোয়ার পারভেজ বলেন,কৃষকদের বীজ,সার, কীটনাশক,উপকরণ দা,কোদাল এবং কিছু নগদ অর্থও প্রদান করা হয় তা আর ফেরত দিতে হয় না। সাথে সাথী ফসলের জন্য শিমের বীজ,লাল শাক ও ভূট্টার বীজও প্রদান করা হয় যাতে তুলা চাষের সাথে একই জমিতে একই সাথে চাষ করে চাষী লাভবান হতে পারে।

তুলা চাষী শাহা আলমের সাথে কথা হলে তিনি জানান,দারিদ্র্য বিমোচন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় তিনি এক প্লট বা এক বিঘা জমিতে তুলা চাষ করেন। এক বিঘা জমিতে তাঁর ১০হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তবে তিনি ১১৪কেজি তুলা সংগ্রহ করেছেন, এতে প্রতিকেজি ৯০টাকা করে ১০২৬০টাকা করে বিক্রি করেন। যেখানে তাঁর খরচ করা টাকা উঠে যায়,তবে মাঠে চার ভাগের তিন ভাগ তুলা সংগ্রহ করা বাকী রয়ে যায়,এতে তিনি আরও ৩০হাজারের চেয়েও বেশি টাকা পাবে বলে অভিহিত করেন। তিনি আরও জানান, এই তুলা চাষের ভেতরে একই সাথে সাথী ফসলের চাষ করা যায়। তবে,পর্যাপ্ত পানি দিতে পারলে আরও ফলন ভালো হবে বলে জোর দিয়ে বলেন। গরিব হওয়ার কারণে সেচ পাম্পের অভাবে এই কার্পাস তুলা চাষে পর্যাপ্ত পানি দিতে পারে নি। তবে সেচ পাম্প ও তুলার আর একটু দাম পেলে প্রান্তিক কৃষকেরা ক্ষতিকর তামাক চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে এবং ক্ষতিকারক তামাক চাষ করা থেকে বিরত থাকবে বলে জানান অনেক কৃষক । সাথে সাথে কৃষকেরা স্বাবলম্বী হয়ে উঠবে এবং দেশের অর্থনীতিতে তুলা চাষ নতুন মাত্রা যোগ করবে।


বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved