মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০১:৩৩ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১৪ টাকা কমল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে শিমরন হেটমায়ারকে সরকারবিরোধী সমাবেশের ডাক দিয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী গাজীপুর মহানর আওয়ামী লীগে তোড়জোড়, যুবলীগে কালক্ষেপন, ছাত্রলীগে গুছিয়ে উঠার প্রক্রিয়া! ক্ষ্মীপুরে বাংলাদেশ ইউ,পি মেম্বার এসোসিয়েশনের মতবিনিময় অনুষ্ঠিত নেতার আশির্বাদে বিজয়ের নিশ্চয়তা দিচ্ছেন জেলা পরিষদ সদস্য প্রার্থী বাকেরগঞ্জের মাসুদ দৌলতপুরে নির্বাচনের আগেই শতভাগ এমপিভূক্তি: এমপি বাদশাহ্ সোস্যাল মিডিয়ায় গুজব, প্রতিবাদ জানালেন প্রভাষক যশোরে কুকুরের মত মুখ নিয়ে গরুর বাছুরের জন্ম

সরকারি বিধি নিষেধ অমান্য করে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করছে লঞ্চ কতৃপক্ষ

রাজধানী ঢাকার সঙ্গে যোগাযোগের অন্যতম নৌপথ মাদারীপুর শিবচরের বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে শনিবার দেখা যায় যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। করোনা সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধের পরও কিছু লঞ্চে ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি যাত্রী বহন করা হচ্ছে। বেশির ভাগ যাত্রীর মুখে ছিল না মাস্ক। সেখানে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।সরেজিমনে শনিবার সকালে বাংলাবাজার ঘাটে গিয়ে দেখা গেছে, প্রতিটি লঞ্চেই রয়েছে ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভিড়। একইসঙ্গে রাজধানী ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ দেখা গেছে প্রতিটি লঞ্চে। সামাজিক দূরত্ব না মেনে যাত্রীরা লঞ্চের ডেকে গাদাগাদি করে আসছেন। লঞ্চ ঘাটে ভেড়ার সময় যাত্রীরা একসঙ্গে নামতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। এ সময় বেশির ভাগ মানুষের মুখেই মাস্ক দেখা যায়নি। অনেকের মাস্ক আবার থুতনিতে।

বাগেরহাটগামী যাত্রী মো. কাউসার বলেন, ঘাটে যাত্রীদের অনেক ভিড়। লঞ্চ থেকে নেমে টার্মিনালে এসে বাসের টিকিট পেতে সারিতে দাঁড়িয়েছি। অনেকে মাস্ক পরলেও বেশির ভাগ যাত্রী ভিড়ের কারণে মাস্ক পরছেন না।

লঞ্চ থেকে নামার পর অন্য যাত্রীদের সঙ্গে ভিড়ের মধ্যে মাস্ক ছাড়াই হেঁটে যাচ্ছিলেন ঢাকা থেকে আসা বৃদ্ধ আবদুল মান্নান। মুখে মাস্ক নেই কেন জানতে চাইলে বলেন, ‘বুড়া মানুষ তো, মাস্ক পরার কথা মনে থাকে না।’ কথা বলতে বলতে তিনি পকেট থেকে মাস্ক বের করে পরেন।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved