সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৩:২৮ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
অভয়নগরে স্কুলে নিয়োগ বাণিজ্য সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন পুঠিয়ার বানেশ্বরে স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির মারামারিতে সভাপতি আহত জয়পুরহাটে পৃথক ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু সরিষাবাড়ীতে ব্যাপক হারে চোখ ওঠা রোগী  বেড়ে চলছে  বিদেশি মদসহ সিএনজি ড্রাইভার আটক টেকনাফে ১২টি নবনির্মিত ক্লিনিকের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী  সরিষাবাড়ীতে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হত্যার উদ্দেশ্যে হামলায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে  কালাম সরদার তিনজনকেই ফ্ল্যাট দিয়ে সুন্দর পরিবেশে রাখা উচিত যা বললেন ডিপজল মাধবপুরে গাছ ফেলে ডাকাতির চেষ্টা গুলি ছুড়ে ডাকাত আটক।

চট্টগ্রাম নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ ২১ বছর ধরে অপূর্ণাঙ্গ কমিটিই ঠাঁই নেতৃত্বে

আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ চট্টগ্রাম নগর আহবায়ক কমিটি গঠিত হয় ২০০১ সালে। এরপর কেটে গেছে ২১টি বছর। ২১ সদস্যের সেই আহ্বায়ক কমিটি দিয়েই ২১ বছর পার করে ফেলেছে চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ। এই ২১ বছরে চট্টগ্রামে একবারও সম্মেলন করতে পারেননি আহ্বায়ক কমিটির নেতারা। তাই হয়নি চট্টগ্রাম মহানগরের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। এমনকি এই বন্দর নগরীতে ওয়ার্ড এবং থানা পর্যায়েও কোনো কমিটি করা সম্ভব হয়নি।
২০২১ সালের ১১ এপ্রিল প্রথমবারের মতো চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তখন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ার কারণে তা পিছিয়ে ২৯ মে নির্ধারণ করা হয়েছিল। সেই তারিখও পিছিয়ে পরে ১৯ জুন সম্মেলন ভার্চুয়ালি করার সিদ্ধান্ত হয়। অবশেষে চট্টগ্রাম নগরীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করে ভার্চুয়াল সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় চট্টগ্রাম মহানগরী স্বেচ্ছাসেবক লীগের।
তবে যে নতুন কমিটির আশায় ২১ বছরের প্রতীক্ষায় ছিলেন এখানকার নেতাকর্মিরা, সেই আশায় গুড়েঁবালি। সফলভাবে ভার্চুয়াল সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়নি। অথচ, এই ভার্চুয়াল সম্মেলনকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটির সভাপতি হতে ৪৩ জন এবং সাধারণ সম্পাদক হতে ৩২ জন তরুণ নেতা সংগঠনটির ফরম কিনে নাম জমা দিয়েছিলেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের চেয়ারম্যান নির্মল রঞ্জন গুহ বলেন, ‘চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি চূড়ান্ত করার জন্য সিনিয়র নেতাদের নিয়ে ঢাকায় একটি বৈঠক করা হবে। এরপর অন্যান্য প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে এই ফেব্রুয়ারি মাসেই নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে।’
জানা গেছে, এবার চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের ১০১ সদস্যের  পূর্ণাঙ্গ  কমিটি ঘোষণা করা হবে। নতুন কমিটির বিভিন্ন পদে জায়গা পেতে ৬৩১ জনের নাম কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে চট্টগ্রাম থেকে। এরমধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছে ৭৫ জন তরুণ নেতার নাম। যাদের মধ্য থেকেই নতুন কমিটির বিভিন্ন পদে দায়িত্ব দেয়া হবে। দীর্ঘ ২১ বছর পর নতুন কমিটি হওয়ার কারণেই পদ প্রত্যাশীর সংখ্যা এত বেশি বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। নতুন কমিটিতে স্থান পেতে নগরীর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাদের পাশাপাশি সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদেরও বেশ তোড়জোড় রয়েছে।
চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটির সম্ভাব্য সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে যাদের নাম আলোচনায় রয়েছে তারা হলেন- নগরীর লালখান বাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবুল হাসনাত বেলাল, সাদেক হোসেন পাপ্পু, দেবাশীষ নাথ দেবু, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হেলাল উদ্দিন, আজিজুর রহমান আজিজ, সুজিত দাশ, আজাদ খান অভি, আনোয়ারুল হোসেন বাপ্পী, এম এ নেওয়াজ, আব্দুর রশিদ লোকমান, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, নুরুল কবির, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, জসিম উদ্দিন, তসলিম উদ্দিন, মনোয়ার জাহান মনি, দেলোয়ার হোসেন ফরহাদ ও মিনহাজুল আবেদীন সায়েম।
এছাড়াও নতুন কমিটির বিভিন্ন পদপ্রত্যাশীদের মধ্যে সাবেক ছাত্রনেতা শেখ ফরিদ, সরফরাজ নেওয়াজ রবিন, মোহাম্মদ ফয়সাল বাপ্পী, নুরুল আবছার, রাহুল দত্ত, সৈকত দাশ, মো. ওমর ফারুক, নুরুজ্জামান রিপন সহ আরো অনেকের নাম শোনা যাচ্ছে।
নগরীর লালখান বাজার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা আবুল হাসনাত বেলাল বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ যে ভার্চুয়াল সম্মেলন করেছে তা যুগান্তকারী ঘটনা। বাংলাদেশের ইতিহাসে এটিই প্রথম ভার্চুয়াল সম্মেলন। যা নতুন এক দৃষ্টান্ত। রাজনীতিতে ঢাকার পরেই চট্টগ্রামের অবস্থান। তারপরও এখানে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন ২০ বছর পর হয়েছে। এরফলে এখানে অনেক যোগ্য নেতৃত্ব গড়ে উঠেছে। কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দও চট্টগ্রামের যোগ্য নেতাদেরকে দিয়েই নতুন কমিটি গঠন করবেন। ত্যাগী, সৎ ও যোগ্য নেতৃত্ব বাছাই করতেই এত সময় নেয়া হয়েছে বলে আমি মনে করি। আশা করছি, খুব অল্প সময়ের মধ্যেই একটি নতুন কমিটি উপহার দেবেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।
সাবেক ছাত্রলীগ নেতা দেবাশীষ নাথ দেবু বলেন, ‘দীর্ঘ ২১ বছরে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নতুন কমিটি হলেও শুধু হয়নি স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি। ২০০১ সালের আহবায়ক কমিটি দিয়েই চলছে এই সংগঠনটি। চট্টগ্রামে স্বেচ্ছাসেবক লীগকে আরো গতিশীল করতে নিয়মিত কমিটি করতে হবে। দায়িত্ব পেলে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগকে আরো শক্তিশালী, পরিচ্ছন্ন ও দক্ষ সংগঠনে পরিণত করতে আপ্রাণ চেষ্টা করব।’
ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আজিজুর রহমান আজিজ বলেন, ‘ছাত্র জীবনের সমাপ্তি ঘটিয়ে আমি স্বেচ্ছাসেবক লীগের রাজনীতির সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সম্পৃক্ত। সংগঠনের কাজে যখনই যেখানে দায়িত্ব পেয়েছি, তখনই সেই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেছি। এই করোনা মহামারীতে আমার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে অনেক হত দরিদ্র মানুষকে এবং সংগঠনের অভাবগ্রস্ত মানুষকে আর্থিক সহায়তা করেছি। কখনো পদ পদবি নিয়ে ভাবিনি। তবে যদি দায়িত্ব পাই, তাহলে সংগঠনকে এগিয়ে নিতে আমি কাজ করে যাবো। ’
ছাত্রলীগের সাবেক নেতা এম এ নেওয়াজ বলেন, ‘ছাত্রজীবন থেকে রাজনীতিতে আছি। আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে জামাত-বিএনপি বিরোধী আন্দোলনে প্রতিহত করেছি। দীর্ঘদিন স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি না হওয়ায় অনেক জট হয়েছে। আমরা চাই তরুণদের মধ্য থেকে নেতৃত্ব আসুক। গুরুত্বপূর্ণ পদে এলে সংগঠনকে আরো গতিশীল করবো।’

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved