সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০১:৩৪ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
অভয়নগরে স্কুলে নিয়োগ বাণিজ্য সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন পুঠিয়ার বানেশ্বরে স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির মারামারিতে সভাপতি আহত জয়পুরহাটে পৃথক ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু সরিষাবাড়ীতে ব্যাপক হারে চোখ ওঠা রোগী  বেড়ে চলছে  বিদেশি মদসহ সিএনজি ড্রাইভার আটক টেকনাফে ১২টি নবনির্মিত ক্লিনিকের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী  সরিষাবাড়ীতে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হত্যার উদ্দেশ্যে হামলায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে  কালাম সরদার তিনজনকেই ফ্ল্যাট দিয়ে সুন্দর পরিবেশে রাখা উচিত যা বললেন ডিপজল মাধবপুরে গাছ ফেলে ডাকাতির চেষ্টা গুলি ছুড়ে ডাকাত আটক।

নাসিরনগরে এক শিক্ষককে পিটিয়ে আহত করে ঘরের আসবাব পত্র ভাংচুর নগদ ২ লক্ষ টাকা লুট

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগরে এক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষককে পিটিয়ে মারাত্বক আহত করে ঘরের ভেতর আটকে রেখে ঘরে থাকা একটি এলইডি টিভি ও আলমারী ভেঙ্গে নগদ ২ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে।
ঘটনাটি ঘটেছে নাসিরনগর উপজেলার পুর্ব নরহা গ্রামে, ওই শিক্ষকের নাম মোঃ রাসেল মিয়া সে ভেলুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালের সহকারী শিক্ষক বলে জানায়।
শিক্ষক রাসেল মিয়া জানায়,তার ছোট চাচা মোঃ ইসহাক মিয়া ও তার প্রতিবেশী কোয়রপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মিজবাহ উদ্দিনের ইন্ধনে তার বড় ভাই আশার সহকারী ম্যানেজার ও ভাইয়ের স্ত্রী ভাড়াটিয়া লোক দ্ধারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে।ওই শিক্ষকের দাবী সে এখন নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছে।
শিক্ষক রাসেল মিয়া বর্তমানে নাসিরনগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
ওই ঘটনায় শিক্ষক রাসেল মিয়া বাদি হয়ে তার বড় ভাই আশার সহকারী ম্যানেজার মোঃ তোফাজ্জল হোসেন সোহেল,শিক্ষক মিজবাহ উদ্দিন,সোহেলের স্ত্রী লিপি বেগম,ইসহাক মিয়া ও উহেদা বেগম ৫ জনকে আসামী করে নাসিরনগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করে।
শিক্ষক রাসেল মিয়া জানায়,মিজবাহ উদ্দিন একজন শিক্ষক নামের কলংক।তার কাজ হল বিভিন্ন পরিবারের লোকজনের মাঝে ঝগড়া সৃষ্টি করা।মিজবাহ একজন ক্রিমিনাল প্রকৃতির লোক।কোন এক সময় তার ক্রিমিনালীর কারনে তার স্কুলের দপ্তরী কাম নৈশপ্রহরী মিজবাহকে পিটিয়ে তার হাত ভেঙ্গে ফেলে।পরে খবর পেয়ে ওই নৈশ প্রহরীর স্ত্রী তার স্বামীকে বাচাতে আসলে শিক্ষিক মিছবাহ নৈশ প্রহরীর স্ত্রীর শ্লীলতাহানি করার চেষ্টা করে।পরে ওই ঘটনায় মিজবাহর বিরোদ্ধে মামলা হয়।বর্তমানেও শিক্ষক মিজবাহ ও তার ছেলে মিনহাজ একটি মামলার আসামী।তাছাড়াও শিক্ষক মিজবাহ উদ্দিনের বিরোদ্ধে রয়েছে আরো বহু অভিযোগ।সে যখন যে দল ক্ষমতায় আসে সেই দলের সাথে লিয়াজু করে নানা অপকর্ম চালিয়ে যায়।
জানতে চেয়ে শিক্ষক মিজবাহ উদ্দিনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।
রাসেলের মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নাসিরনগর থানা উপ- পুলিশ পরিদর্শক রোপন নাথ জানান অভিযোগটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved