রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
নোয়াখালীতে ক্রাইম পেট্রোল দেখে শিখে অদিতাকে খুন,   ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে বালিশ চাপায় শ্বাসরোধ; মৃত্যু নিশ্চিত করতে জবাই মেসির জোড়া গোলে আর্জেন্টিনার দুর্দান্ত জয় এইচএসসি ব্যাচ-২২ এর উদ্যোগে ও আয়োজনে ব্যতিক্রমী শিক্ষা সমাপনী “Flashmob” অনুষ্ঠিত ধোবাউড়া কলসিন্দুরে ফুটবল কন‍্যাদের পরিবারের পাশে জেলা প্রশাসন কমেছে বিক্রি, হতাশ সদরঘাটের ব্যবসায়ীরা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় স্থবির কেন্দ্রীয় গবেষণাগার স্থাপন প্রকল্প জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অসঙ্গতির তদন্তে অর্ধবছর পার বাংলাদেশ প্রেসক্লাব শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার কমিটি গঠন দুর্গাপুরে ৫নং ঝালুকা ইউনিয়ন বঙ্গবন্ধু সৈনিকলীগের কমিটি গঠন সাফজয়ী নারী ফুটবল দলের গোলরক্ষক রূপনা চাকমাকে বাড়ি তৈরি করে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ডিমলা উপজেলার গাছে গাছে আমের মুকুল, বাতাসে ছড়াচ্ছে মৌ মৌ গন্ধ

আয় ছেলেরা আয় মেয়েরা, ফুল তুলিতে যাই, ফুলের মালা গলায় দিয়ে, মামার বাড়ি যাই। ঝড়ের দিনে মামার দেশে আম কুড়াতে সুখ, পাঁকা জামের মধুর রসে, রঙিন করি মুখ’।
পল্লীকবি জসীম উদ্দিনের ‘মামার বাড়ি’ কবিতার বাস্তব রূপের দেখা পেতে আর মাত্র কয়েক মাস বাকি। এর মধ্যে গাছে গাছে ফুঁটেছে আমের মুকুল। উপজেলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ছে আমের মৌ মৌ গন্ধ। যে গন্ধ মানুষের মনকে বিমোহিত করে। পাশাপাশি শোনায় মধুমাসের আগমনী বার্তা।
নীলফামারী ডিমলা উপজেলায় মুকুলে ছেয়ে গেছে আম বাগান।  বাতাসে ছড়াচ্ছে ঘ্রাণ। দেখা গেছে, উপজেলার সারি সারি আম গাছের বাগান গুলো হলুদ আর সবুজের মহামিলনে ভোরে উঠেছে। আর সেই মুকুলে ছেয়ে গেছে গাছের ডালপালা।
চারদিকের বাতাসে ছড়াচ্ছে সেই মুকুলের সুবাসিত পাগল করা সু ঘ্রাণ। যে ঘ্রাণ মানুষের মনকে বিমোহিত করে। এখন আমের মুকুলে ছেয়ে গেছে সব আম গাছ। পাশাপাশি মধুমাসের আগমনী বার্তা জানাচ্ছে আমের মুকুল।
তবে আমের ফলন নির্ভর করছে আবহাওয়ার ওপর। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ বছর আমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন ডিমলা উপজেলার বাগান মালিকরা। মৌসুমের শুরুতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় মুকুলে ভরে গেছে বাগানসহ ব্যক্তি উদ্যোগে লাগানো আম গাছ গুলো।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ডিমলা সদর, বালাপাড়া, পশ্চিম  ছাতনাই, ছাতনাই কলোনি, গয়াবাড়ী, নাউতারা, খালিশা চাপানি, ঝুনাগাছ চাপানী, এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বড় আকারের চেয়ে ছোট ও মাঝারি আকারের গাছে বেশি মুকুল ফুটেছে। যেদিকে চোখ যায় গাছে গাছে এখন শুধু দৃশ্যমান মুকুল আর মুকুল।
মৌমাছিরাও আসতে শুরু করেছে মধু আহরণে। সেই মুকুলের গন্ধে বাগান মালিকদের চোখে ভাসছে স্বপ্ন। গাছের পুরো মুকুল ফুটতে আরও কয়েকদিন লাগবে বলে জানান বাগান মালিকরা।
বাগান মালিক মুক্তার হোসেন,  বলেন, বড় আকারের চেয়ে ছোট ও মাঝারি আকারের গাছে বেশি মুকুল ফুঁটেছে। আমি প্রতিদিন বিভিন্ন আম বাগান গুলো পরিদর্শন করছি। এখনও কোনো বাগানে সমস্যা দেখা যায়নি। পোকা দমনে বালাইনাশক স্প্রে করেছি। সেই সাথে সালফার জাতীয় ছত্রাক নাশক স্প্রে করেছি। কারণ শুরু থেকে মুকুলের পরিচর্যা করতে পারলে এবার আমের ফলন বাম্পার হবে। হপার পোকা মুকুলের কচি অংশের রস চুষে খেয়ে বেচে থাকে। এ জন্য মুকুল সবুজ থাকা অবস্থায় কীটনাশক স্প্রে করে থাকে তারা। আমের বাম্পার বাম্পার ফলনের আশায় পরিচর্যায় ব্যস্ত উপজেলার আম চাষিরা।
উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সেকেন্দার আলী বলেন, বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ বছর আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। আমের বাম্পার ফলনের জন্য সব রকম তথ্য দিয়ে কৃষকদের সহযোগিতা করছেন উপজেলা কৃষি অফিস।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved