সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০১:৩০ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
অভয়নগরে স্কুলে নিয়োগ বাণিজ্য সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন পুঠিয়ার বানেশ্বরে স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও সভাপতির মারামারিতে সভাপতি আহত জয়পুরহাটে পৃথক ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু সরিষাবাড়ীতে ব্যাপক হারে চোখ ওঠা রোগী  বেড়ে চলছে  বিদেশি মদসহ সিএনজি ড্রাইভার আটক টেকনাফে ১২টি নবনির্মিত ক্লিনিকের উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী  সরিষাবাড়ীতে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হত্যার উদ্দেশ্যে হামলায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে  কালাম সরদার তিনজনকেই ফ্ল্যাট দিয়ে সুন্দর পরিবেশে রাখা উচিত যা বললেন ডিপজল মাধবপুরে গাছ ফেলে ডাকাতির চেষ্টা গুলি ছুড়ে ডাকাত আটক।

খুলনা-মোংলা রেললাইনে দু’টি স্থানে ওভারপাস নির্মাণ না হওয়ায় সড়ক পথে ঝুঁকি থাকছেই

খুলনা-মোংলায় প্রায় ৬৫ কিলোমিটার রেললাইনের দু’টি স্থানে ওভারপাস নির্মাণের জনগুরুত্বপূর্ণ দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে নতুন এ রেল লাইন খুলনা-সাতক্ষীরা আঞ্চলিক মহাসড়ক এবং গল্লামারী-বটিয়াঘাটা-দাকোপ জেলা সড়কে ঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে। এ দু’টি স্থানে ওভারপাস নির্মাণের জন্য রেলওয়ের প্রকল্প পরিচালককে চিঠি দিলেও সাড়া পায়নি খুলনা সড়ক বিভাগ।
জানা গেছে, খুলনা-সাতক্ষীরা আঞ্চলিক মহাসড়কটি দক্ষিণাঞ্চলের উপজেলাগুলোর সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র সড়ক। এ ছাড়া ভোমরা স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পণ্য আমদানি-রপ্তানির জন্য এই মহাসড়ক ব্যবহূত হয়। এ সড়কে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজার ছোট-বড় যানবাহন চলাচল করে। এই মহাসড়কের নিজখামার এলাকায় সড়কের ওপর দিয়ে চলে গেছে খুলনা-মোংলা রেললাইন।
সরেজমিনে দেখা যায়, সড়কের এক পাশে রেললাইন বসানো হয়েছে; অন্য পাশে বেড তৈরি রয়েছে। সড়ক থেকে ৩-৪ ফুট উঁচু দিয়ে রেললাইন বসানো হবে। এ জন্য ইটের খোয়া ও বালু ফেলে সড়ক উঁচু করা হয়েছে। রেল লাইন অতিক্রম করতে যানবাহন গুলোর গতি কমাতে হচ্ছে। এর ফলে দুই পাশেই যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।
খুলনার গল্লামারী-বটিয়াঘাটা-দাকোপ-নলিয়ান ফরেস্ট জেলা সড়কটি ওই অঞ্চলের পাঁচ লক্ষাধিক মানুষের যাতায়াতের একমাত্র সড়ক। বটিয়াঘাটা ও দাকোপে একাধিক এলপি গ্যাস প্লান্ট তৈরি হওয়ায় এই সড়ক দিয়েই পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল করে। সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন ৪-৫ হাজার যান চলাচল করে। সড়কের দারোগাভিটা এলাকা দিয়ে গেছে রেললাইন।
ওই এলাকা ঘুরে দেখা যায়, সড়ক থেকে ৫-৬ ফুট উঁচু দিয়ে রেললাইন গেছে। এ জন্য সড়কের দুই পাশে ঢাল তৈরি করে বিটুমিন দিয়ে কার্পেটিং করা হয়েছে। এ স্থানে রেলক্রসিং নির্মাণ করা হলে যানজট ও দুর্ঘটনা বাড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।
বটিয়াঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম খান বলেন, বটিয়াঘাটা-দাকোপের মানুষের খুলনা নগরীতে আসার একমাত্র সড়ক এটি। এখানে রেলক্রসিং নির্মাণ করা হলে যানজট ও দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। খুলনা-সাতক্ষীরা সড়কটি ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। দু’টি স্থানে ওভারপাস নির্মাণ করা না হলে দুর্ঘটনা, দুর্ভোগ লেগেই থাকবে।
সড়ক বিভাগ-খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আনিসুজ্জামান মাসুদ বাংলাদেশ সমাচার কে জানান, খুলনা-মোংলা রেললাইনের কারণে দু’টি সড়কে যানজট ও দুর্ঘটনা বাড়বেই। এ জন্য গুরুত্বপূর্ণ সড়ক দু’টিতে রেলক্রসিং না করে ওভারপাস নির্মাণের জন্য কয়েক দফা চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু সাড়া মিলছে না।
বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সভাপতি শেখ আশরাফ উজ জামান বলেন, জনগণের সুবিধার জন্য খুলনা-মোংলা রেললাইন নির্মাণ হচ্ছে। এ লাইন যদি মানুষের দুর্ভোগ বাড়ায়, তা হবে কষ্টের। রেলওয়ে সমাধান না করলে সরকারের অন্য দপ্তরগুলোর উচিত সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসা।
খুলনা-মোংলা রেল প্রকল্পের পরিচালক মোঃ আরিফুজ্জামান জানান, ওই দু’টি স্থানে ওভারপাস নির্মাণের বিষয়টি প্রকল্পে ছিল না। নতুন করে প্রকল্পের সময় বা ব্যয় বাড়ানো সম্ভব নয়। ডিসেম্বরের মধ্যেই আমরা প্রকল্পের কাজ শেষ করবো। সে ক্ষেত্রে চলমান প্রকল্পে নতুন কিছু করা সম্ভব নয়। তার পরও জনপ্রতিনিধিদের দাবির বিষয়টি আমরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। তারা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved