সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:৪৮ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
তুরস্কে ভূমিকম্পে নিহত ১১৮, ধ্বংসস্তূপে আটকে আছেন বহু মানুষ আমার মন্তব্য ছিল ফখরুলকে নিয়ে, হিরো আলম নয়: কাদের রিয়ালের হার, শীর্ষস্থানের পয়েন্ট বাড়াল বার্সেলোনা ইবিতে ছাত্রলীগের কর্মীসভা অনুষ্ঠিত  আইডিয়াল কমার্স কলেজ ও আইডিয়াল ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের  শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়ন শীর্ষক  কর্মশালা আদালতের আদেশ অমান্য করে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ শহিদ এএইচএম কামরুজ্জামানের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা বাংলা মায়ের টানে মুক্তিযুদ্ধে  অংশ নিয়েছিল এদেশের বীর সন্তানরা                                                      বিশ্ব ক্যান্সার দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সাত্তার হল রুমে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক স্মৃতিময় সন্ধ্যায়  সফেনের স্বপ্নদ্রষ্টা ও আমরা ক’জন

জমি নিয়েছে, এখন আমার জীবনটাও নিতে চায় ছেলেরা

এবার প্রথম না, এর আগেও চার বার মেরেছে আমার ছোট ছেলে আজমত। গ্রামের অনেকের কাছে বিচার দিয়েছি। কেউ আমার বিচার করে দেয়না। পাঁচ দিন আগেও আমাকে মেরে ঘর থেকে নামিয়ে দিয়েছে। হাসপাতালে এসে হুমকি দিয়েছে আমি বাড়ি গেলে নাকি মেরে ফেলবে। অনেক কষ্ট করে ছেলেদের বড় করেছি। তাদের ভালোবেসে ৫ বিঘা জমি দিয়েও ভালোবাসা পাইনি। এখন আমার জীবনটাও নিতে চায় নিজের সন্তানরা। হাসপাতাল থেকে ছুটি দিলে এই বৃদ্ধ বয়সে কোথায় যাব চিন্তায় আছি।’

হাসপাতালের বিছানায় বসে কথাগুলো বলছিলেন মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সাহারবাটি গ্রামের ৮০ বছরের বৃদ্ধ আমির আলী। গত ১৪ জানুয়ারি বিকেল থেকে বৃদ্ধ আমির আলী ও তার স্ত্রী জরিনা গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা গেছে, জমি দিতে না চাওয়ায় আমির আলী  ও জরিনা খাতুনকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন চার ছেলে।  তাদেরকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছেন ছেলেরা। অসহায় ও অসুস্থ অবস্থায় এই দম্পতি পাঁচদিন ধরে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছেন। কোথাও যাওয়ার  জায়গা নেই তাদের। হাসপাতাল থেকে ছুটি দিলে কোথায় গিয়ে উঠবেন তা নিয়ে চিন্তায় দিশেহারা এই বৃদ্ধ দম্পতি।

আমির আলী বলেন, আমার দুই স্ত্রী। প্রথম স্ত্রীর নাম খুয়ারী খাতুন। আমার প্রথম স্ত্রীর দুই ছেলে হেকমত আলী ও আব্দুল মতিন। দ্বিতীয় স্ত্রী জরিনা খাতুন। বর্তমানে আমার সঙ্গেই থাকে। দ্বিতীয় স্ত্রীর দুই ছেলে আজমত আলী ও খেজমত আলী। ৫ বিঘা জমি সবটাই দুই স্ত্রীর চার ছেলেকে রেজিস্ট্রি করে দিয়েছি। আর মাত্র ৯ শতক জমি আছে সেটুকুও নিতে চায় তারা। জমি নেওয়ার সময় ছেলেদের সঙ্গে চুক্তি ছিল আমাদের ভরণপোষণের সব দায়িত্ব নেবে তারা। প্রথম দিকে  খাওয়ার জন্য কিছু টাকা দিলেও আর তারা আমাদের খোঁজ নেয় না।

তিনি বলেন, আমার বাকি ৯ শতক জমি আমার স্ত্রী জরিনার নামে দিয়েছি। সে জমিটুকুও তারা আমার কাছ থেকে নিয়ে নিতে চায়। আমি তাদের জমিটুকু লিখে না দিতে চাইলে ছোট ছেলে আজমত আলী কিনে নিতে চায়। আমার ভবিষ্যতের কথা ভেবে শেষ সম্বলটুকু হাতছাড়া করতে চাইনি। সে অপরাধে গত ১৪ জানুয়ারি আমাদের দুজনকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। পরে আমার লেপ কাথা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে আসতে চাইলে সেগুলো কেড়ে নিয়েছে। অসুস্থ অবস্থায় দুজন বৃদ্ধ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। আজমত আলী ও খেজমত আলী হাসপাতালে এসেও হুমকি দিয়ে গেছে। আমরা যেন বাড়ি ফিরে না যাই। এই বৃদ্ধ বয়সে কোথায় যাব? কী খাব কিছুই ভেবে পাচ্ছি না। এখন পর্যন্ত আমাদের খোঁজ নেইনি তারা। তাই আইনের আশ্রয় নিতে চাই।

বৃদ্ধা জরিনা খাতুন বলেন, আমার বাবার বাড়ি থেকে পাওয়া জমি বিক্রির চার লাখ টাকাও চার ভাই মিলে নিয়ে নিয়েছে। সেটাও আর ফেরত দেইনি।

এ ব্যাপারে সাহারবাটি ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য আনারুল ইসলাম (আকালী) বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি ও মহল্লার লোকজন বেশ কয়েকবার সালিস বৈঠক করেছি। তাদের প্রতি মাসে চার হাজার করে টাকা দেওয়ার কথা ছিল। জমি রেজিস্ট্রি করে নেওয়ার পর ছেলেরা আর তা দেয় না। বৃদ্ধ বাবা-মাকে প্রায়ই তারা মারধর করে। কয়েক দিন হলো তাদের বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে।

এ বিষয়ে আমির আলীর ছেলে খেজমত আলী বলেন, বাবা-মা আমাদের কথা মেনে চলে না। আমরা তাদের খেতে দিতে চাই। কিন্তু তারা সে খাবার খায় না। বাবা-মায়ের এখন জমির কী দরকার? বাবা আমাকে যে জমি রেজিস্ট্রি করে দিয়েছে, আমার কাছ থেকে ফেরত চাইলে সেটা ফেরত দিয়ে দেব। শুধু আমি না আমার অন্যান্য ভাইয়েরাও ফেরত দিয়ে দেবে। তারা এখন জমি ফেরত নিয়ে কী করে হালচাষ করে তার শেষ দেখতে চাই।

গাংনী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাইনি। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক ও মানবিক হওয়ায় খোঁজ নিয়ে দেখে ছেলেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই বৃদ্ধ বয়সে ছেলেরা যদি বাবা-মায়ের খেয়াল না রাখেন তাহলে তারা অসহায় হয়ে যাবেন।


বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved