রবিবার, ২৬ Jun ২০২২, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় মাদার তেরেসা পদক পেলেন এস এম পিন্টু পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে রামগঞ্জ থানা পুলিশের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে বগুড়া জেলা প্রশাসকের আয়োজনে শোভাযাত্রা পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদ্‌যাপনে, বাংলাদেশ পুলিশের্ নিরাপত্তা প্রস্তুতি সম্পন্ন অবিলম্বে দেশে ভোজ্যতেলের দাম সমন্বয়ের দাবি-ক্যাব ফুলপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ৭৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত।  বাঙালি জাতির সমস্ত অর্জন এসেছে আওয়ামী লীগের হাত ধরে -তথ্যমন্ত্রী পদ্মা সেতু উদ্বোধনে মহিউদ্দিন মহারাজের নেতৃত্বে ৬টি লঞ্চে পিরোজপুরের ১৫ হাজার নেতাকর্মীরা অংশ নেবেন ময়মনসিংহ আইটি ও হাই-টেক পার্ক এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন লাকসামে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

পিরোজপুর জেলা পরিষদের প্রশাসক মহিউদ্দিন মহারাজ

মোঃ মহিববুল্লাহ হাওলাদার, পিরোজপুর প্রতিনিধি।

পিরোজপুর জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পেলেন সদ্য বিদায়ী জেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন মহারাজ।

তিনিসহ সারাদেশে জেলা পরিষদের সদ্য বিদায়ী চেয়ারম্যানদের প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সরকার। বুধবার তাদের নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, জেলা পরিষদ আইন-২০০০ এর জেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন-২০২২ অনুযায়ী সংশোধিত এর ধারা ৮২ এর উপ-ধারা (২) অনুযায়ী দেশের ৬১টি জেলা পরিষদে সর্বশেষ চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী ব্যক্তিবর্গকে প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হলো।

মো. মহিউদ্দিন মহারাজ জেলার ভান্ডারিয়া উপজেলার তেলিখালী ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মরহুম শাহাদাৎ হোসেন এর বড় ছেলে।

২০১৬ সালে দেশে প্রথম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচনে মহিউদ্দিন মহারাজ স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করে বিপুল ভোটের ব্যবধানে জয়ী হন। গত ৫ বছরে তিনি স্বচ্ছতা ও দক্ষতার সাথে পিরোজপুর জেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন। হয়েছেন জননন্দিত জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান।

গত ৫ বছরে তিনি চেয়ারম্যান থাকাকালে পিরোজপুর জেলা পরিষদকে জনমূখী করেছেন। জেলা পরিষদকে একটি দুর্নীতিমুক্ত প্রতিষ্ঠানে পরিনত করেছেন। জেলা পরিষদের মাধ্যমে প্রতিটি উপজেলায় স্বচ্ছতার সাথে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছেন। করোনাকালীন সময়ে জেলা পরিষদ আত্মমানবতার সেবায় কাজ করেছে। জেলার বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ ও প্রতিষ্ঠানকে খাদ্য ও নগদ অর্থ সহায়তা, স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদানসহ জেলার হাসপাতালগুলোতে করোনা চিকিৎসা উপকরণ প্রদান করা হয়েছে।

জেলার প্রবেশদ্বারগুলোতে জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি সংযুক্ত গেট নির্মান করা হয়েছে। পিরোজপুর জেলা পরিষদ ভবনকে একটি আধুনিক জেলা পরিষদ ভবনে রূপান্তরিত করাসহ জেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রীর ম্যুরাল স্থাপন করা হয়েছে। জেলা পরিষদের মাধ্যমে পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলায় একটি আধুনিক সুপার মার্কেট নির্মান করা হয়েছে। জেলার ভান্ডারিয়ার হরিণপালায় ৪ তলা বিশিষ্ট একটি আধুনিক ডাকবাংলো নির্মান করা হয়েছে। নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠী) উপজেলা সদরে ৪ তলা বিশিষ্ট একটি আধুনিক ডাকবাংলো নির্মান কাজ চলমান। এছাড়া জেলার প্রতিটি উপজেলায় স্কুল, কলেজ মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উন্নয়ন প্রকল্প এবং গ্রামীন রাস্তাঘাটের উন্নয়নসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের অনুদান প্রদান, মেধাবী ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান, দরিদ্র মানুষদের চিকিৎসা সহায়তা সহায়তা প্রদানের ফলে এসব শ্রেণির লোতজন জেলা পরিষদের মাধ্যমে উপকৃত হয়েছে।

বিএস/কেসিবি/সিটিজি/১১ঃ২০পিএম

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved