মঙ্গলবার, ২৮ Jun ২০২২, ১২:৩২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
দালাল ধরতে চট্টগ্রাম মহানগরীর কাট্টলী সার্কেল ভূমি অফিস ও আশেপাশের এলাকায় অভিযানঃএক দালালকে অর্থদণ্ড “অসহায় ও দরিদ্র বিচার প্রার্থী জনগণের শেষ আশ্রয়স্থল লিগ্যাল এইড:সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভূঞা ২য় দিনের মত সুনামগঞ্জ জেলায় ত্রাণ ও নগদ অর্থ বিতরণ করলেন কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে কাউখালীতে আলোচনা সভা ও আনন্দ র‌্যালি শার্শা সাব-রেজিস্ট্রী অফিসের কর্মচারী ও দলিল লেখক গনের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম রথ উৎসব ধামরাই শ্রীশ্রী যশোমাধব দেবের রথ উৎসব ও মাসব্যাপী রথমেলা শুরু হবে শুক্রবার ময়মনসিংহ কৃষি ব্যাংক বিভাগীয় মহাব্যবস্হাপকের বিশেষ উদ্যোগে বন্যা কবলিত ভানবাসি মানুষকে সহায়তা প্রদান করছেন। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত এমপি মোতাহার হোসেন মাদক একেবারে নির্মূল করা না গেলেও সমন্বিত উদ্যোগে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব:চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ময়মনসিংহের শম্ভুগঞ্জের রঘুরামপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মহিলা নিহতের ঘটনায় -আটক-৯

ধানক্ষেতে ব্যাকটেরিয়াল লিফ ব্লাইড (বিএলবি) ও ব্লাস্ট রোগের হানায় দিশেহারা কৃষক

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে চলতি ইরি-বোরো মৌসুমের ক্ষেতের ধান পাকতে শুরু করেছে । তবে ঠিক এসময়ই ধান ক্ষেতে ব্যাকটেরিয়াল লিফ ব্লাইড (বিএলবি) ও ব্লাস্ট রোগের হানায় ফসল হানিতে দিশেহারা অবস্থা চাষিদের।
ফসলকে ঘিরে কতই না স্বপ্ন ছিল কৃষকের । কেউ ধান কেটে ব্যাংকের ঋণ বা ধার-দেনা পরিশোধ করবেন। কেউ ধান বিক্রির টাকায় ধুমধাম করে ছেলে বা মেয়ের বিয়ে দিবেন। আবার কেউ ধান বিক্রির টাকায় ছেলে-মেয়ের বায়না পূরণসহ পরিবারের জন্য কেনাকাটা করবেন।
যাদের নিজস্ব আবাদি জমি নেই, অন্যের জমি বর্গা নিয়ে রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে জমিতে ধান লাগিয়েছিলেন। স্বপ্ন দেখেছিলেন, উৎপাদিত ধানে পরিবারের সদস্যদের দু’বেলা খাবারের নিশ্চিত মজুদ হবে। কিন্তু ভেসে গেল চাষিদের সে স্বপ্ন।
দূর থেকে কৃষকের ধান ক্ষেত দেখে মনে হয় ক্ষেতের ধান পেকেছে। কিন্তু ক্ষেতে গিয়ে দেখা যায় উল্টো চিত্র। ধান আছে ঠিকই, তবে ধানে চাল নেই। পাতা পোড়া ও ব্লাস্ট রোগের হানায় পুড়ে গেছে ক্ষেত।
আগাম জাতের ব্রি-২৮ ধান চাষ করে ফসল হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের বহু কৃষক। ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত ক্ষেতে গিয়ে কান্নাকাটি করতে দেখা গেছে উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের ঘোগারকুটি গ্রামের মোসলেম উদ্দিন নামের এক ধান চাষিকে।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ধানক্ষেত ঘুরে দেখা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে ব্রি-২৮ জাতের ধানক্ষেতে ব্লাস্ট রোগের আক্রমণে ধান শুকিয়ে চিটা হয়ে গেছে।
উপজেলার শাহবাজার থেকে গেটের বাজার সড়কের দু’পাশের কৃষকের ধানক্ষেতে তাকাতেই দেখা য়ায় ব্যাকটেরিয়া জনিত পাতা পোড়া রোগে আক্রান্ত হয়েছে শত শত বিঘা জমির ধানক্ষেত। আর রোগের হানায় ফলন বিপর্যয় হওয়ার শঙ্কায় আছেন এ অঞ্চলের বহুকৃষক।
উপজেলার ধনিরাম গ্রামের আব্দুল মজিদ বলেন, মানুষের কাছে ধার-দেনা করে ১২ শতাংশ জমিতে ধান লাগিয়েছি। রোগ ধরে সব ধান নষ্ট হয়ে গেছে। আবাদ তো শেষ হয়ে গেল। আমরা এখন খাবো কী?
বড়ভিটা ইউনিয়নের ঘোগারকুটি গ্রামের মুকুল মিয়া বলেন, অন্যের কাছে দুই বিঘা জমি বর্গা নিয়ে ধান চাষ করেছি। হঠাৎ করেই ধান গাছের পাতা ও শীষ শুকাতে শুরু করে। তখন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানালে তিনি ওষুধ লিখে দেন। সেই ওষুধ জমিতে স্প্রে করেও ফসলের কোনো উন্নতি হয়নি।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষক বলেন, এবারে প্রতি বিঘা জমি চাষাবাদ করতে ১৩-১৪ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। ধান মাড়াই করে বিঘায় ২ মণ ধানও পাওয়া যায়নি। ধান নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। এখন আমরা সরকারি সহযোগিতা চাই।
উপজেলা কৃষি অফিসার নিলুফা ইয়াসমিন  বলেন, প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে ধান ক্ষেতে ছত্রাক ও ব্যাকটেরিয়া জনিত রোগের আক্রমণে কিছু ফসলের ক্ষতি হয়েছে। আক্রান্ত ক্ষেত হতে  কৃষকরা কিছুটা কম ফলন পাবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved