বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০২:২৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
ছাতকের পরিস্থিতি ভয়াবহ,সারা‌দে‌শে সঙ্গে সড়ক যোগা‌যোগ বন্ধ পিরোজপুরে বাস চাপায় কলেজ ছাত্র নিহত ১৭ মে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা,গণতন্ত্রের অগ্নিবীণা ও উন্নয়ন-প্রগতির প্রত্যাবর্তনঃ তথ্যমন্ত্রী নাজিরপুর অঞ্চলের কৃষকের স্বপ্ন প্রতি বছর তলিয়ে যায় পানির নিচে কালিহাতীতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন রাজশাহী জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের ভোট স্থগিত প্রফেসর ডাক্তার উত্তম কুমার বড়ুয়াকে সংবর্ধিত করলো মিলন-পুর্নিমা ফাউন্ডেশন ঈদগাঁওর ৫ ইউনিয়নে আওয়ামী রাজনৈতিক অঙ্গনে চাঙ্গাভাব: উচ্ছাস তৃনমূলে চট্টগ্রামের হিজরা সুমন মানবিক কাজে আত্ম তৃপ্তি পান সরিষাবাড়ীতে দুই শিশু শিক্ষার্থী হারানোকে কেন্দ্র করে মাদ্রাসায় হামলা ভাঙচুর ও শিক্ষককে লাঞ্ছিত

নতুন ভাসমান পদ্ধতিতে সবজি চাষে ভাগ্য ফিরেছে ডুমুরিয়ার কৃষকদের

খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার বিস্তীর্ণ জলাভূমি। কৃষকেরা এসব জলাভূমিতে ‘ভাসমান’ পদ্ধতিতে সবজির চারা ও শাকসবজি চাষ করেছেন।

এই পদ্ধতিতে সবজি চাষ করেছেন ওই উপজেলার অনেকেই। এসব খামারে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন তারা। কৃষি কার্যালয় থেকে এসব কৃষককে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। স্থানীয় কৃষকদের চাওয়া আরও একটু সরকারি আনুকূল্য, একটু সহজ শর্তে ঋণ। তাহলে বিস্তার ঘটবে ব্যতিক্রমী এ চাষাবাদের।

কৃষি কর্মকর্তা ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে্ল দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার  জানান , ভাসমান বেডে সবজিচাষ জনপ্রিয়করণ প্রদর্শনী প্রকল্পের আওতায় কৃষক পর্যায়ে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধির ওপর ভাসমান শয্যা পাতা হচ্ছে। যেসব অঞ্চল পানির নিচে থাকে, সেখানে কৃষকদের ভাসমান সবজি চাষের জন্য উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। মূলত কচুরিপানা দিয়ে শয্যা (বেড) তৈরি করা হয়। প্রতিটি শয্যা ২০ মিটার লম্বা, প্রায় দেড় মিটার পুরু ও প্রস্থ চার মিটার। দুইটি বেড মিলে একটি প্রকল্প। ডুমুরিয়ায় এমন মোট ২০টি প্রকল্পে শাকসবজির আবাদ করা হচ্ছে। কৃষকেরা প্রধানত লালশাক, পুঁইশাক, ডাঁটাশাক, কলমি লতা, ঢেঁড়স, লতিরাজ কচু ও লাউয়ের চাষ করছেন। প্রতিটি প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে সাত থেকে আট হাজার টাকা। কৃষি কর্মকর্তারা চাষাবাদের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ দিচ্ছেন চাষিদের। উপজেলার মধু গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, তিন থেকে চারজন কৃষক একটি ধাপের চারায় পানি দিচ্ছেন। কয়েকজন চারা তুলে নৌকায় সাজিয়ে বাজারজাত করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ওই এলাকার কৃষক মহসিন সরদার বলেন, অভাবের কারণে আমি লেখাপড়া করতে পারিনি। ‘ভাসমান’ পদ্ধতিতে সবজি চাষে আমার ভাগ্য ফিরেছে। আমার সন্তানেরা এখন স্কুল-কলেজে পড়ছে। তিনি আরও বলেন, এই পদ্ধতিতে সবজি চাষাবাদ করে বেশ সফলতা দেখছি। সবজি বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতেছি। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সুত্রমতে, প্রায় তিনবিঘা জমিতে ধাপ পদ্ধতিতে বিভিন্ন ধরনের সবজিচারা ও সবজি উৎপাদন করা হয়। এর জন্য জানুয়ারি থেকে মার্চ মাসে কচুরিপানা সংগ্রহ করে স্তূপ করা হয়। জলাভূমিতে প্রথমে কচুরিপানা এবং পর্যায়ক্রমে শ্যাওলা, কুটিপানা ও দুলালীলতা স্তরে স্তরে সাজিয়ে দুই ফুট পুরু ধাপ তৈরি করা হয়। ধাপে জৈব উপকরণ দ্রুত পচাতে সামান্য পরিমাণ ইউরিয়া সার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। একেকটি ভাসমান ধাপ ১০০ থেকে ১৮০ ফুট দীর্ঘ ও চার ফুট প্রশস্ত হয়। এ ধাপ চাষের উপযোগী করতে সাত থেকে ১০দিন প্রক্রিয়াধীন রাখতে হয়।

এভাবে পানির ওপর কচুরিপানার বেডে শাকসবজির চাষ করা সম্ভব আগে কখনো চিন্তাই করেননি উপজেলার রংপুর গ্রামের কৃষক রনজিৎ বালা। তিনি বলেন, নিচু জমি বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধ থাকত। কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শ ও সহায়তা নিয়ে চিন্তাভাবনার পর ধাপ

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved