মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৭:১২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
রেমিটেন্স যোদ্ধাদেরকে সম্মাননা দেবে মহানগর আওয়ামী লীগ- আ জ ম নাছির উদ্দীন যাত্রীর স্বর্ণালংকারসহ ব্যাগ চুরি;এ্যাপসের সহায়তায় সিএনজি চালক আটক রোহিঙ্গারা যাতে ভোটার তালিকায় স্থান না পায় সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবেঃ জেলা প্রশাসক চলচ্চিত্র ‍‘হুইল চেয়ার’র প্রিমিয়ার শো চট্টগ্রাম শিল্পকলায় বৃহস্পতিবার বাগেরহাট জেলার সেরা অফিসার নির্বাচিত হয়েছেন এসি ল্যান্ড মোঃ আলী হাসান খেলাধুলায় সম্পৃক্ত থাকলে আমাদের সন্তানরা বিপদগামী হবে না-মহিউদ্দীন মহারাজ ভান্ডারিয়ায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন কোভিড-১৯ এর সার্টিফিকেট নিয়ে বিদেশগামী সাধারণ যাত্রীদের সাথে প্রতারণা;চক্রের ৭ সদস্য গ্রেফতার নগরীতে র‍্যাব-৭ ও ভোক্তা অধিকার যৌথ অভিযান;১২ হাজার লিটার তৈল জব্দসহ ৫ লক্ষ টাকা জরিমানা ঝুঁকিপূর্ণ সেতুটি সংস্কার করা হয়েছে 

বাঁশখালীর লাখো মানুষের স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে স্থায়ী বেড়িবাঁধ প্রকল্পের কাজ প্রায় শেষ

বাঁশখালী উপজেলার লাখো মানুষের এখন পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) স্থায়ী বেড়িবাঁধে স্বপ্ন দেখছেন বেঁচে থাকার। ২৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে বাঁশখালী উপকুল জুড়ে স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণ করছে পাউবো। এই প্রকল্পের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছেন পাউবোর সাব ডিভিশনাল অফিসার প্রকৌশলী প্রকাশন চাকমা। তিনি জানান, বাঁশখালীর স্থায়ী বেড়িবাঁধ প্রকল্পের প্রায় ৯৪ শতাংশের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
বাঁশখালীর খানখানাবাদের প্রেমাশিয়া ও রায়ছটা এলাকার লোকালয়ে সিসি ব্লকের মাধ্যমে বাঁধ নির্মাণের কাজও অনেক জায়গায় সিসি ব্লক বসানোর কাজ হয়েছে। আশা করি খুব দ্রুত প্রকল্পের কাজ শেষ করতে পারবো। প্রকল্পের কাজ শেষ হলে সমগ্র বাঁশখালী উপকুলীয় এলাকা সমুদ্রের জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষা পাবে।
জানা যায় ২০১৫ সালে প্রায় ২০৯ কোটি টাকা ব্যয়ে স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্প হাতে নেয় পাউবো। বিভিন্ন সমস্যার কারণে প্রকল্পের কাজ ধীরগতি হয়ে পড়ে। ২০১৮ সালে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। ২০২০ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে প্রকল্প কাজে দ্রুতগতি আসে। এ প্রকল্পের প্রায় ৯৪ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। তবে বিভিন্ন সময় ক্ষেপনের কারনে প্রকল্পে ব্যয় বেড়ে ২৯৩ কোটি টাকায় দাড়িয়েছে বলে জানান। তিনি আরও জানান,বাঁশখালী উপজেলায় পোল্ডার নং ৬৪/১এ, ৬৪/১বি, ৬৪/১সি এবং ৬৪/২এ এর আওতায় সর্বমোট ১৪২ কিমি বাঁধ রয়েছে। যার মধ্যে ৩৬ কিমি উপকূলীয় বাঁধ এবং অবশিষ্ট ১০৬ কিমি আভ্যন্তরীন বাঁধ। উপকূলীয় বাঁধের মধ্যে ৯.৬ কিমি চলমান প্রকল্পের আওতায় সুরক্ষিত করা হচ্ছে। প্রকল্পটি জুন/২০২২ এ সমাপ্ত হবে। অবশিষ্ট অংশের মধ্যে কারিগরি কমিটি ও সম্ভাব্যতা সমীক্ষার সুপারিশের আলোকে অতিঝুঁকিপূর্ণ বাঁধসমূহ চিহ্নিত করে নতুন প্রকল্প প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রকল্পটি বর্তমানে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। প্রকল্পের আওতায় ৯.২৭ কিমি উপকূলীয় বাঁধ পুনরাকৃতিকরণ ও ঢাল সংরক্ষণ, ৭.১৩ কিমি নদী তীর প্রতিরক্ষা, ২১.৯৪ কিমি আভ্যন্তরীন বাঁধ পুনর্বাসন, ১৬ কিমি জলকদর খাল সহ ৮০.৩৩৬ কিমি খাল পুনঃখনন, প্রেমাসিয়া বাজারের উজানে সাঙ্গু নদীর লুপকাট, ৫ টি স্লুইস গেইট পুনঃনির্মাণ, ২টি ইনলেট-আউটলেট নির্মাণ, সাংগু নদীর তৈলারদ্বীব ব্রিজের ডাউন্সট্রিমে ৯.৬১৫ কিমি ড্রেজিং কাজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, এই বেড়িবাঁধ নির্মাণ করার জন্য আমরা সাগরের পাড়ে মানবন্ধন করেছি। সভা-সমাবেশ করেছি।সরকারের উন্নয়নের ছোয়া শেষ পর্যন্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে লেগেছে। এই বেড়িবাঁধে বাঁশখালী উপকুলীয় এলাকার আর কোন জমি ও ঘরবাড়ি সমুদ্রে বিলিীন হবে না। দিতে হবে না কোন প্রাণ।
ঈানি উন্নয়ন বোর্ড চট্টগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী নাহিদ উর জ্জামান জানান ,শুরুর দিকের নকশার কারণে বেড়িবাঁধ নির্মাণে কিছুটা সমস্যা হয়েছে। বাঁশখালীর প্রকল্পের ছনুয়া অংশের কাজ দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পরেও কাজ বাস্তবায়ন করতে না পারায় প্রকল্পের স্টিয়ারিং কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক চুক্তি বাতিল করে দরপত্র আহবান করে গত ডিসেম্বরে কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে নতুন কার্যাদেশকৃত কাজটি অগ্রগতি ৬০%। আশা করা যায় জুন-২২ এর মধ্যে সমাপ্ত হবে। এছাড়াও নদীর মরফোলজিক্যাল পরিবর্তনসহ কাজ বাস্তবায়নকালীন সময়ে সংঘটিত বিভিন্ন ঘূর্ণিঝড়ের জলোচ্ছ্বাসের ঢেউয়ের আঘাতে প্রেমাসিয়া অংশের ক্ষতিগ্রস্ত কাজ মেরামত করা হচ্ছে।  আশা করি প্রকল্পের মেয়াদ অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হবে। এলাকাবাসীর বন্যায় ক্ষতি অনেকাংশে কমে যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved