রবিবার, ২৬ Jun ২০২২, ০৬:১২ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় মাদার তেরেসা পদক পেলেন এস এম পিন্টু পদ্মা সেতুর উদ্বোধনে রামগঞ্জ থানা পুলিশের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে বগুড়া জেলা প্রশাসকের আয়োজনে শোভাযাত্রা পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উদ্‌যাপনে, বাংলাদেশ পুলিশের্ নিরাপত্তা প্রস্তুতি সম্পন্ন অবিলম্বে দেশে ভোজ্যতেলের দাম সমন্বয়ের দাবি-ক্যাব ফুলপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ৭৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত।  বাঙালি জাতির সমস্ত অর্জন এসেছে আওয়ামী লীগের হাত ধরে -তথ্যমন্ত্রী পদ্মা সেতু উদ্বোধনে মহিউদ্দিন মহারাজের নেতৃত্বে ৬টি লঞ্চে পিরোজপুরের ১৫ হাজার নেতাকর্মীরা অংশ নেবেন ময়মনসিংহ আইটি ও হাই-টেক পার্ক এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন লাকসামে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

বাক প্রতিবন্ধী হয়েও থেমে নেই পত্নীতলার রাব্বানী

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার মহেশপুর গ্রামে তার বসবাস। জন্মলগ্ন হতে কথা বলতে ও শোনতে পায় না সে। আকার ইঙ্গিতে হয় তার চলাফেরা। তবুও থেমে নেই রাব্বানী। নিজের অদম্য ইচ্ছে শক্তি ও জোড় মনোবল নিয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং শুধু পড়াশোনার মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন রং তুলির আঁচড়ে।

পড়াশোনার পাশাপাশি অনেক ভালো ছবি আঁকে রাব্বানী। কখনও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, কখনো মা-ছেলে আবার কখনো বা খেয়াপারাপারের দৃশ্য, গ্রাম বাংলার প্রাকৃতিক দৃশ্য ফুটিয়ে তুলছেন তার রং তুলির মাধ্যমে। রং তুলিতেই যেন তার মনের ভাষার বহিঃপ্রকাশ ঘটে। শুধু একাডেমিক জ্ঞানই নয় সে একবার যা দেখেন মুহূর্তের মধ্যে তা আয়াত্ত করে ফেলেন।

রাজশাহী আর্ট কলেজের ড্রয়িং এন্ড পেইন্টিং ডিপার্টমেন্ট পড়াশোনা চলমান রয়েছে তার। ইতোমধ্যে তিনি ছবি এঁকে জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে অনেক পুরস্কার ও সম্মাননা স্মারক সহ বিভিন্ন সনদ অর্জন করেছেন। সমাজের বোঝা না হয়ে বরং সমাজের মানুষের জন্য কিছু করতে চান সে।

রাব্বানীর পিতা সাইদুর রহমান জানান, আমি একজন কৃষক মানুষ।  বাড়ী ভিটা ছাড়া নিজের জমিজমা কিছু নেই। ৪ ছেলে-মেয়ের মধ্যে রাব্বানী ৩য়। আমি মারা গেলে সে যেন কারো কাছে অবহেলিত না হয়। ছোট থেকে অনেক কষ্টে বড় করেছি এখন তার সরকারী কোন কর্মসংস্থান হলে একটু স্বস্তি হতো।

তার মা সেলিনা বেগম বলেন, জন্মের পর হতে মানুষের অনেক কটু’কথা শুনেছি। ছোটবেলায় ভর্তি করিয়েছিলাম রাজশাহীর হাইকেয়ার স্কুলে। অক্ষর চেনা, লেখা, কথাবলা চেষ্টার দু’বছরের ঔ কোর্সটি এক বছর এই আয়ত্ব করে ফেলে। অনেক কষ্টে তাকে বড় করি। ছেলেটার কোন একটা গতি দেখে যেতে পারলে আমি মরেও শান্তি পেতাম।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বাক প্রতিবন্ধী হলেও আর ১০ টি শিক্ষার্থীর চেয়ে বরাবরই তার রেজাল্ট ভাল। মহেশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে জিপিএ ৫, বামইল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ ৫ এবং মান্দা ভোকেশনাল থেকে এসএসসি পাস করেন। এবং পরবর্তীতে তিনি রাজশাহী আর্ট কলেজে ভর্তি হন। আর্ট কলেজে এইচএসসি পাস করে এখন আর্ট কলেজের স্নাতক তৃতীয় বর্ষে পড়াশোনা করছেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved