বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৬:০৬ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
ছাতকের পরিস্থিতি ভয়াবহ,সারা‌দে‌শে সঙ্গে সড়ক যোগা‌যোগ বন্ধ পিরোজপুরে বাস চাপায় কলেজ ছাত্র নিহত ১৭ মে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা,গণতন্ত্রের অগ্নিবীণা ও উন্নয়ন-প্রগতির প্রত্যাবর্তনঃ তথ্যমন্ত্রী নাজিরপুর অঞ্চলের কৃষকের স্বপ্ন প্রতি বছর তলিয়ে যায় পানির নিচে কালিহাতীতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন রাজশাহী জেলা সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের ভোট স্থগিত প্রফেসর ডাক্তার উত্তম কুমার বড়ুয়াকে সংবর্ধিত করলো মিলন-পুর্নিমা ফাউন্ডেশন ঈদগাঁওর ৫ ইউনিয়নে আওয়ামী রাজনৈতিক অঙ্গনে চাঙ্গাভাব: উচ্ছাস তৃনমূলে চট্টগ্রামের হিজরা সুমন মানবিক কাজে আত্ম তৃপ্তি পান সরিষাবাড়ীতে দুই শিশু শিক্ষার্থী হারানোকে কেন্দ্র করে মাদ্রাসায় হামলা ভাঙচুর ও শিক্ষককে লাঞ্ছিত

পূর্বধলায় ঘরের অভাবে মানবেতর জীবন মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের

নেত্রকোণার পূর্বধলায় জরাজীর্ণ ঘরে মধ্যেই পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে এক মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। টিনের তৈরি একমাত্র জরাজীর্ণ ঘরে ভোগান্তি নিয়ে চলছে তাদের বসবাস।
বলছি, উপজেলার সদর ইউনিয়নের রেল স্টেশনের উত্তর পাশে বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল খালেকের পরিবারের কথা।
২০১৩ সালের ৯ এপ্রিল নিয়তির ডাকে পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে হয় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক-কে। একজন মুক্তিযোদ্ধার গল্প হয়তো এখানেই শেষ হতে পারতো কিন্তু এই বীরের স্ত্রী নাছিমা আক্তার শুরু করেন জীবন নামক যুদ্ধের আরও একটি গল্প৷
স্বামীর মৃত্যুর পর মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা দিয়ে অনেক কষ্টে চলছে নাছিমা আক্তারের পরিবার।
যেখানে একাই সংগ্রাম করে যাচ্ছেন তিনি আর নিকট আত্মীয় ও সমাজ যেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী৷
 ৪ ছেলে ও ৩  মেয়েকে নিয়ে সংসার নাসিমা আক্তারের। বাড়িতে ভাঙ্গা টিনের জোড়াতালি দিয়ে তৈরি একটিমাত্র ঘর, যা বসবাসের অনুপযোগী।
মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আব্দুল খালেক মিয়ার বড় ছেলে পারভেজ মিয়া বলেন, ‘আমরা অত্যন্ত গরিব শ্রেণির মানুষ। বাড়ির একমাত্র ঘরটি বেহাল হওয়ায় অতিকষ্টে দিন পার করছি। সরকার কর্তৃক মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বরাদ্দকৃত বাড়ির জন্য আবেদনও করেছি। একজন অসহায় মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের সদস্য হিসেবে এ বিষয়ে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছি।’
সংশ্লিষ্ট প্রশাসন অসহায় এই মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে শান্তিতে ঘুমানোর ব্যবস্থা করে দেবেন- এমনটি প্রত্যাশা মুক্তিযোদ্ধা মরহুম খালেক মিয়ার স্ত্রী নাছিমা আক্তারের। সেই সঙ্গে দ্রুত স্থায়ী আবাসনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন নাসিমা আক্তার।
এ ব্যাপারে পূর্বধলা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ইসলাম উদ্দিন বলেন, ‘তাদের ঘরের বেহাল অবস্থার কথা আমি জেনেছি। সরকারের পক্ষ থেকে একটি ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।’
উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মে কুলসুম বলেন, পর্যায়ক্রমে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের আবাসনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved