সোমবার, ২৭ Jun ২০২২, ১১:১৯ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
দালাল ধরতে চট্টগ্রাম মহানগরীর কাট্টলী সার্কেল ভূমি অফিস ও আশেপাশের এলাকায় অভিযানঃএক দালালকে অর্থদণ্ড “অসহায় ও দরিদ্র বিচার প্রার্থী জনগণের শেষ আশ্রয়স্থল লিগ্যাল এইড:সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভূঞা ২য় দিনের মত সুনামগঞ্জ জেলায় ত্রাণ ও নগদ অর্থ বিতরণ করলেন কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে কাউখালীতে আলোচনা সভা ও আনন্দ র‌্যালি শার্শা সাব-রেজিস্ট্রী অফিসের কর্মচারী ও দলিল লেখক গনের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম রথ উৎসব ধামরাই শ্রীশ্রী যশোমাধব দেবের রথ উৎসব ও মাসব্যাপী রথমেলা শুরু হবে শুক্রবার ময়মনসিংহ কৃষি ব্যাংক বিভাগীয় মহাব্যবস্হাপকের বিশেষ উদ্যোগে বন্যা কবলিত ভানবাসি মানুষকে সহায়তা প্রদান করছেন। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত এমপি মোতাহার হোসেন মাদক একেবারে নির্মূল করা না গেলেও সমন্বিত উদ্যোগে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব:চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার ময়মনসিংহের শম্ভুগঞ্জের রঘুরামপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে মহিলা নিহতের ঘটনায় -আটক-৯

বারইয়ারহাটে র‍্যাবের উপর মাদক কারবারিদের পরিকল্পিত হামলা ও ঘটনার বিশ্লেষণ

কমল চক্রবর্তীঃ চট্টগ্রাম বভাগীয় প্রধানঃ
র‌্যাব-৭ এর সূচনালগ্ন থেকেই মাদক, অস্ত্র উদ্ধার, সন্ত্রাসী ও জঙ্গি বিরোধী বিভিন্ন অভিযান পরিচালিত করে আসছে। রাষ্ট্র ও জনগণের নিরাপত্তা ও স্বার্থ নিশ্চিত করতে দেড় যুগের মতো সময় ধরে কাজ করছে। এতে করে জনগণের আস্থা ও ভরসার জায়গায় পরিণত হয়েছে এই বিশেষায়িত এলিট ফোরসটি। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে র‍্যাব গুরুতর অপরাধ দমনে কাজ করছে। যার ফলে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। র‍্যাবের এই সফলতা অর্জনে রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দিক-নির্দেশনা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নিরবচ্ছিন্ন তত্ত্বাবধান, র‌্যাবের প্রতিটি সদস্যের কঠোর পরিশ্রম, সর্বোপরি দেশবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থন ও ভালোবাসা। জঙ্গি দমনে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে রোল মডেল। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর জিরো টলারেন্স নীতির আলোকে র‌্যাব তার কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। এর ফলে জঙ্গিবাদ নির্মূল করতে সক্ষম হয়েছে।

‘চলো যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ স্লোগানে মাদকবিরোধী অভিযান অব্যাহত রেখেছে র‌্যাব। এসেছে একের পর এক সাফল্য। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তৎপর র‌্যাব চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ড, ধর্ষণসহ বিভিন্ন মামলার আসামিদেরও গ্রেফতারে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। একের পর এক ধরা পড়ছে সন্ত্রাসী ও পলাতক আসামী। ঘৃণিত মানবপাচারকারী চক্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত অপরাধীদেরও গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে এসেছে র‌্যাব। নতুন সামাজিক ব্যাধি কিশোর গ্যাং নির্মূলে র‌্যাব সদা তৎপর আছে। নিরাপদ খাদ্য ও চিকিৎসা নিশ্চিতে দেশজুড়ে খাবার হোটেল, রেস্টুরেন্ট, উৎপাদন কারখানা এবং ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারেও অভিযান চালিয়ে আসছে র‌্যাব। সক্রিয় আছে মেয়াদোত্তীর্ণ ও ভেজাল ওষুধ, শিশু খাদ্য, ভুয়া চিকিৎসক এবং পাসপোর্ট অফিসের দালাল চক্রের বিরুদ্ধেও। দেশ থেকে মাদক, অস্ত্র কারবারি ও সন্ত্রাস নির্মূল করার ক্ষেত্রে বেশ কিছু ঈর্ষণীয় সাফল্য রয়েছে।

সাম্প্রতিক চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ের বারইয়ারহাট পৌর বাজারে শান্তিরহাট রাস্তার মাথায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মাদক কারবারিদের পরিকল্পিত হামলায় ৩ র‍্যাব সদস্য গুরুতর আহত হয়। মাদক কারবারি্রা ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার দিলে স্থানীয়রা ডাকাত সন্দেহে তিন ৩ র‍্যাব সদস্য কে গণপিটুনি দেয়। মুলত র‍্যাব-৭ এর একটি গোয়েন্দা দল সাদা পোশাকে মাদকের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহের জন্য চট্টগ্রামের বারইয়ারহাট এলাকায় যায়। এসময় র‍্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে  দুষ্কৃতিকারী মাদক ব্যবসায়ী পরিকল্পিতভাবে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার করে র‍্যাব সদস্যদের উপর আক্রমন চালায়। হামলায় স্থানীয়রাও অংশ নেয়। এতে দুই র‌্যাব সদস্যসহ তিনজন আহত হয়েছেন। আহত র‌্যাব সদস্য হলেন- মো. শামিম কাউছার (২৯) ও মোখলেছ। অপর আহত ব্যক্তি হলেন পারভেজ (২৯)। আহত র‌্যাব সদস্যদের মধ্যে কাউসারকে (২৯) বারইয়ারহাট জেনারেল হাসপাতাল এবং মোখলেস (৩৩) ও পারভেজকে (২৮) বারইয়ারহাট মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

র‌্যাব সুত্র জানিয়েছে, সাদা পোশাকে র‌্যাব সদস্যরা মাদক উদ্ধারে অভিযানে যান। এ সময় মাদক কারবারিরা ‘ডাকাত’ ‘ডাকাত’ বলে চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজন হামলায় অংশ নেন। এতে র‌্যাবের দুই সদস্যসহ তিনজন আহত হন। আহত দুই র‌্যাব সদস্যকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, রাত ৮টার আগে বারইয়ারহাট পৌর বাজারের উত্তর পাশে র‌্যাব সদস্যদের বহন করা সাদা রঙের একটি প্রাইভেটকারকে অপর একটি মাইক্রোবাস ধাওয়া করে কয়েক রাউন্ড গুলি চালায়। তারা সবাই সাদা পোষাকে থাকায় স্থানীয়রা ডাকাত মনে করে পিটিয়ে আহত করে। এসময় অন্য একটি গাড়িতে র‌্যাবের পোশাক পরিহিত কয়েকজন এসে দুজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। আরেকজনকে জোরারগঞ্জ থানা পুলিশ উদ্ধার করে। এ সময় প্রাইভেটকারটিও ভাঙচুর করা হয়।

এ বিষয়ে র‌্যাবের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) নুরুল আবছার জানান, র‌্যাব-৭ এর একটি দল অভিযানে গেলে মাদক কারবারিরা ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার করলে স্থানীয় লোকজনের হাতে দুই র‌্যাব সদস্য আহত হন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গুরুতর আহতদের হেলিকপ্টার যোগে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

ফেনীর র‌্যাব-৭ কোম্পানি অধিনায়ক আব্দুল্লাহ আল জাবের ইমরান বলেন, এ ঘটনায় আহতদের হেলিকপ্টার যোগে ঢাকার সিএমএইচ এ পাঠানো হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের মধ্যে এ পর্যন্ত কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের আটকে অভিযান অব্যাহত আছে। আহতদের অবস্থা এখন স্থিতিশীল আছে। পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

ঘটনার বিশ্লেষণ করলে জানা যায়, সাম্প্রতিককালে র‍্যাব ফেনী অঞ্চলে একের পর এক মাদকের বেশ কিছু চালান আটক করেছে। আটক হয়েছে বেশ কয়েকজন সন্ত্রাসী ও অপরাধী। জোরদার করেছে মাদক বিরোধী অভিযান। অনেকটাই কোনঠাসা হয়ে পড়েছে মাদক পাচারকারীরা। সেই ক্ষেত্রে তারা র‍্যাবকে জনগনের প্রতিপক্ষ বানিয়ে ফায়দা লুফার চেষ্টা করবে। মহাসড়কে মাঝে মধ্যে র‍্যাবের পোশাক পরে বা সিভিল পোশাকে ডাকাতির ঘটনা ঘটছে, তাই ডাকাতির ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে পরিকল্পিতভাবে জনগণকে কাজে লাগিয়ে ঘটনাটি ঘটিয়েছে। যেহেতু র‍্যাব মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স এবং মাদককারবারী ও সন্ত্রাসীদের মূর্তিমান আতঙ্ক, সেহেতু ওরা চাইবে সংঘবদ্ধ ভাবে এবং পরিকল্পিত ভাবে হামলা চালিয়ে তাদের ক্ষোভ ঝাড়তে  বা ফায়দা হাসিল করতে।

তাই র‍্যাব ফোরসকে আরো বেশী কৌশলী এবং এমন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে আরো বেশী তৎপর হওয়া দরকার। তা না হলে অপরাধীরা বিভিন্ন সময় এমন পরিস্থিতি তৈরী করে ফায়দা হাসিল করতে চাইবে। যা এই বিশেষ বাহিনীর সাথে একেবারে মানায় না। র‍্যাব সিভিল পোষাকে কোন গোয়েন্দা অভিযান বা কোন বিশেষ অভিযানে গেলে গাড়িতে র‍্যাবের পরিধেয় পোশাক ও হ্যান্ড মাইক রাখতে পারে।  যাতে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি তৈরী হলে মাইকিং করে জনগণকে শান্ত ও সচেতন করতে পারে।

মাদক, অস্ত্র কারবারি ও সন্ত্রাস নির্মূলে অপরিসীম ভূমিকা পালনকারী র‍্যাব জনগণের আস্থা ও ভালোবাসা নিয়ে সাহসের সঙ্গে এগিয়ে যাক। রাষ্ট্র ও জনগণের নিরাপত্তা ও স্বার্থ নিশ্চিত করতে বিগত দেড় যুগের মতো ভবিষ্যতেও দেশ ও দেশের জনগণের মানবাধিকার রক্ষায় প্রতিটি পদক্ষেপ সততা ও সাহসের সঙ্গে গ্রহণ করবে র‌্যাব এমনটাই জাতির প্রত্যাশা। র‍্যাব হয়ে উঠুক রাস্ট্র ও সমাজের প্রতিটা মানুষের অতন্ত্র পহরী।

বিএস/কেসিবি/সিটিজি/৩ঃ০৫পিএম

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved