বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের অভিযানে বিভিন্ন অনিয়মে ৯ ফিলিং স্টেশনকে অর্থদণ্ড ধামইরহাটে শিশু কল্যাণ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন বালুর ট্রাকের ভিতর থেকে মাদক উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৩ পত্নীতলায় নৈশপ্রহরীদের মাঝে বণিক সভাপতি’র ছাতা বিতরণ। মাইক্রোবাসে মাদক পাচার; পটিয়া বাইপাস রোডে ফেন্সিডিল ও গাঁজাসহ আটক ৩ সোনার বাংলা বিনির্মাণে নতুন প্রজন্মকে সঠিক ইতিহাস জানাতে হবেঃ এম.এ সালাম বঙ্গবন্ধুর অনুপ্রেরণা ও উদ্দীপনার উৎস ছিলেন বঙ্গমাতা-স্থানীয় সরকার মন্ত্রী পিরোজপুরে মাদ্রাসার সম্মুখের সংযোগ রাস্তা সংরক্ষণ করার দাবীতে মানববন্ধন ভান্ডারিয়ায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকী পালিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর ৯২তম জন্মবার্ষিকীতে হাসান মুরাদ বিপ্লব এর উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া এবং প্রতিকৃতিতে মাল্যদান

ডোমারে রাস্তার গাছ কেটে নিয়ে যাওয়ার সময় আটক করলো জনতা

নীলফামারীর ডোমারে রাস্তার  ১০টি গাছ কেটে নিয়ে যাওযার সময় স্থানীয় জনগন গাছ বহনকারী গাড়ীগুলোকে আটক করেছে। এ সময় স্থানীয় জনগন গাছকাটার মিস্ত্রী ও গাছ নিয়ে যাওয়ার জন্য আনা ৫টি ভ্যানগাড়ীও আটক করে। খবর পেয়ে সোনারায় ইউনিয়নের ভূমি কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে গিয়ে গাছ কাটার সত্যতা পেয়েছেন।
সোমবার (৩০মে) দুপুরে  উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড  কিসামত  এলাকার মাঝাপাড়ায় ঘটনাটি ঘটে।
স্থানীয়রা জানায়, সোমবার সকাল ১০টা থেকে সোনারায়ের কিসামত এলাকার মাঝাপাড়ায় ৭জন গাছ কাটার শ্রমিক রাস্তার দু’ধারে থাকা ছোট-বড় ইউক্যালেক্টর গাছ কাটছিলো। ৪০টি গাছ কাটার মধ্যে ১০টি গাছ কাটার পরে স্থানীয় শিপন নামে একব্যক্তি গাছ কাটার কারন জানতে চাইলে গাছ কাটার মিস্ত্রীরা জানান,  রশিদ নামে জনৈক এক গাছ ব্যবসায়ী তাদের রাস্তার ৪০টি গাছ কাটতে বলেছে। এবং কোন কোন গাছ কাটা হবে সেসব গাছ তিনি আমাদের দেখাই দিয়ে গেছেন। স্থানীয় শিপন বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফিরোজকে ঘটনাটি অবগত করলে তিনি আমাকে এখান থেকে চলে যেতে বলেন।  সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায় কিসামত এলাকার রাস্তার দু’ধারে থাকা ছোট-বড় অসংখ্য গাছ রয়েছে। সেই রাস্তার ধারের ১০টি গাছ কেটে লক তৈরি করে রাখছে মিস্ত্রীরা। বাকী গাছ কাটার সময় স্থানীয় জনগন গাছকাটার কাগজ দেখতে চাইলে মিস্ত্রীরা কাগজ দেখাতে না পারলে স্থানীয় জনগন বাকী গাছ কাটার জন্য তাদের নিষেধ করে। এ সময় স্থানীয় জনগন বিষয়টি সংশ্লিষ্ট ভূমি কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানালে, তিনি অফিস সহায়ক আলম বাদশাকে ঘটনাস্থলে প্রেরন করেন। অফিস সহায়ক আলম বাদশা জানান, আমি ঘটনাস্থলে আসার আগেই  মিস্ত্রীরা ১০টি গাছ কেটে ফেলেছে। গাছকাটা শ্রমিক ডালিম ও মনিরুল ইসলাম জানান, এই রাস্তার ৪০টি গাছ কাটার জন্য আমাদের হাজিরা হিসেবে নেয় স্থানীয় গাছের পাইকার আব্দুর রশিদ। আব্দুর রশিদ সকালে এসে আমাদের ৪০টি গাছ দেখাই দিয়ে চলে যান। আমরা তার কথামত গাছ কাটা শুরু করি। ৪০টি গাছের মধ্যে ১০টি গাছ কাটার পর স্থানীয়রা এসে আমাদের গাছ কাটা বন্ধ করে দেয়। আমরা শ্রমিক মানুষ ছয়শত টাকা হাজিরা হিসাবে ৭জন শ্রমিক এখানে কাজ করছি। আমরা রশিদকে ফোন দিয়ে ঘটনাস্থলে আসার জন্য বললেও তিনি আর এখানে আসছেননা। গাছ ব্যবসায়ী আব্দুর রসিদ জানান, সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলে আমি গাছগুলো ক্রয় করেছি। তিনি আমাকে গাছ কাটার অর্ডার দিয়েছেন। তবে ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফিরোজ চৌধুরী গাছ কাটার বিষয়ে কোন জানেন না বলে জানিয়েছেন।
সোনারায় ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মো. সামসুল ইসলাম গাছ কাটার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, বিকালে কাটা ১০টি গাছ জব্দ করে ৫টি ভ্যানে করে যাবতীয় মালামাল উপজেলায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে কাগজপত্রাদি যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved