রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১৪ অপরাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :
দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকাতে আপনাকে স্বাগতম! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন,বিজ্ঞাপন দিন সহযোগী হোন! বাংলাদেশ সমাচার পড়ুন বেকারত্ব দূর করুন ।
শিরোনাম :
দিনাজপুরে কৃষি জমির ধান কেটে ফসল নষ্ট করার প্রতিবাদে জাবেদ কে কুপিয়ে গুরুতর জখম রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ১৮ লক্ষ টাকা মূল্যের ইয়াবা উদ্ধার মুন্সীগঞ্জে কোস্ট গার্ডের অভিযানে ২২ হাজার লিটার চোরাই ডিজেলসহ আটক-০২ মুন্সীগঞ্জ‌ে পুলিশ পাহারায় যুবদলকর্মী শাওনের দাফন নোয়াখালীতে ক্রাইম পেট্রোল দেখে শিখে অদিতাকে খুন,   ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে বালিশ চাপায় শ্বাসরোধ; মৃত্যু নিশ্চিত করতে জবাই মেসির জোড়া গোলে আর্জেন্টিনার দুর্দান্ত জয় এইচএসসি ব্যাচ-২২ এর উদ্যোগে ও আয়োজনে ব্যতিক্রমী শিক্ষা সমাপনী “Flashmob” অনুষ্ঠিত ধোবাউড়া কলসিন্দুরে ফুটবল কন‍্যাদের পরিবারের পাশে জেলা প্রশাসন কমেছে বিক্রি, হতাশ সদরঘাটের ব্যবসায়ীরা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় স্থবির কেন্দ্রীয় গবেষণাগার স্থাপন প্রকল্প

ভারতের বিএসএফের গুলিতে নিহত মিনারের লাশ পাঁচ দিন পর পেলো পরিবার

দিনাজপুর সদরের খানপুর বঞ্চিত পাড়া গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে মিনারুল ইসলাম মিনারের লাশ পাঁচ দিন পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর। গ্রামবাসীরা বলেন বুধবার রাত অনুমান সাড়ে ১০ টার সময় বাংলাদেশের দাইনুর সীমান্ত ফাঁড়ির ৩১৫ মেইন পিলারের অদূরে ৩১৪/৭ সাব পিলারের কাছে ভারতের ভাদরা হরিহরপুর বিএসএফ সীমান্ত ফাড়ির বিএসএফের গুলিতে মিনারুল ইসলাম মিনার নিহত হয়। দীর্ঘ ৫ দিন পর দু’দফা পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে আজ সোমবার বিকেলে লাশ হস্তান্তর করা হয়। লাশ হস্তান্তর করার সময় বাংলাদেশের পক্ষে ছিলেন দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তানভীরুল ইসলাম, ৯ নং আস্করপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু বকর সিদ্দিক ইউপি সদস্য মাজেদুর রহমান ও নিহত মিনারুলের পিতা জাহাঙ্গীর আলম। ভারতের পক্ষে ছিলেন গঙ্গারামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ। বিজিবি ও বিএসএফ সদস্যরা উভয়পক্ষে উপস্থিত ছিলেন।মিনারুল নিহত হওয়ার বিষয়টি গণমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় তুলে। নবম শ্রেনীর একজন ছাত্র টক বকে তরুন যে কিনা পড়াশোনার পাশাপাশি কামলা (মুজুরী) খেটে গরীব পিতাকে সাহায্য করতো সে এক রাতেই হয়ে গেলো চোরাকারবারী। তার বিরুদ্ধে আইন শৃংখলা বাহিনীর খাতায় কোন খারাপ রেকর্ড নেই। এলাকায় ছিল সদালাপি। অথচ সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে অকাল মৃত্যুবরনের সাথেই হয়ে গেলো দাগী চোরাকারবারী। বাংলাদেশ ভারতের বিভিন্ন সীমান্তে বিএসএফ এর গুলিতে বাংলাদেশী নিহত হওয়ার ঘটনা হরহামেশাই ঘটছে। কিন্তু বিজিবি’র গুলিতে ভারতীয় নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটে না বললেই চলে। তর্কের খাতিরে যদি চোরাপথের মাল আনার জন্য সীমান্তে বাংলাদেশীরাই যায় তবে চোরাপথের মাল দেয়ার জন্য ভারতীয়রা আসে না। বিএসএফ এর চোখে পড়ে আর বিজিবি’র চোখে পড়ে না বুধবার দাইনুর সীমান্তে মিনারুল ইসলাম মিনারের যেখানে গুলিবিদ্ধ হয়েছে সেই স্থানে মিনারুল বা সঙ্গিরা গেলো কিভাবে। কারন ঐ এলাকায় যেতে হলে বিজিবি দাইনুর বিওপি (ক্যাম্প) সামনে দিয়ে যেতে হয়। তাহলে তারা গেল কিভাবে? এরকম হাজারো প্রশ্ন রয়েছে সচেতন মানুষের কাছে। বিএসএফ এর গুলিতে নিহত হওয়ার ঘটনায় বিজিবি সদস্যদের ঘাফলাতি এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা গেলে সীমান্তে হত্যা অনেকটাই কমে আসবে বলে আশা করেন সচেতন মহল।

Please Share This Post in Your Social Media

বিজ্ঞপ্তি

©দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার 2022All rights reserved